Chandra Sekhar Rao and Mamata Banerjee

ওয়েবডেস্ক: গত ২৪ ডিসেম্বর নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করেন তেলঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও। ২০১৯-এর লোকসভা ভোটের আগে অ-কংগ্রেস এবং অ-বিজেপি জোট গড়ার লক্ষ্যেই তাঁর এই সফর বলে জানা গিয়েছিল। তবে রাওয়ের প্রস্তাবিত ফেডারেল ফ্রন্ট ঠিক কেমন হতে চলেছে, সে বিষয়ে কোনো ইঙ্গিত মেলেনি সেই বৈঠকের পর। এ দিন একটি সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যমে দেওয়া তাঁর সাক্ষাৎকারে কিছুটা স্পষ্ট হল সেই ছবি।

নবান্নে আসার আগের দিনই রাও দেখা করেছিলেন ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়কের সঙ্গে। তিনি দেখা করবেন অখিলেশ যাদব এবং মায়াবতীর সঙ্গে। সব মিলিয়ে তেলঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রীর এই উদ্যোগ নিয়ে সৃষ্টি হয়েছিল ধোঁয়াশা। কংগ্রেসের তরফে এমনটাও দাবি করা হচ্ছে, রাও আদতে বিজেপির ‘এজেন্ট’ হিসাবে কাজ করছেন। কিন্তু রাও এ বার স্পষ্টতই জানিয়ে দিলেন তাঁর সমীকরণ।

ওই সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, “এটা কোনো মতেই ভেবে বসবেন না শুধুমাত্র ক্ষমতা দখলের লক্ষ্য নিয়ে ফেডারেল ফ্রন্ট গঠিত হতে চলেছে। এর নেপথ্যে রয়েছে রাজনৈতিক লক্ষ্যও”। তা হলে মমতার সঙ্গে তাঁর বৈঠকে কী কথা হল?

এমন প্রশ্নের উত্তরে রাও পরিষ্কার ভাবেই জানিয়ে দিয়েছেন, “আমরা শুধু মাত্র রাজনৈতিক ধারণা এবং মতের বিনিময় করেছি”। অর্থাৎ, ফ্রন্টের ব্যাপারে নির্দিষ্ট কোনো নিশ্চয়তা নিয়ে তাঁদের মধ্যে কথা হয়নি বলেই তিনি দাবি করেছেন।

রাজনৈতিক ওয়াকিবহালের মতে, মমতা চাইছেন বিজেপি-বিরোধী ঐক্যবদ্ধ শক্তি গড়ে তুলতে কংগ্রেসকে সঙ্গে রাখতে। কিন্তু রাও চাইছেন অ-বিজেপি এবং অ-কংগ্রেসি জোট গঠন করতে। সে ক্ষেত্রে যদি চন্দ্রবাবু নায়ডুর টিডিপি ওই জোটে অংশ নিতে চায়?

আরও পড়ুন: কেরল-লবি তুষ্ট, ৩ ফেব্রুয়ারি ব্রিগেডে দেখা যেতে পারে কংগ্রেসকে!

রাও বলেন, “এটা খুবই কঠিন একটা সিদ্ধান্ত। তবে নায়ডু আসতে চাইলে আমি বিষয়টা নিয়ে দ্বিতীয়বার ভাবনা অবকাশ থেকেই যায়। কিন্তু অন্যান্য রাজনৈতি্ক দল যেমন ওয়াইএসআরসিপি বা কমিউনিস্ট দলগুলি যদি আসতে চায়, তা হলে আসতেই পারে”।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন

1 COMMENT

  1. কংগ্রেসকে বিশ্বাস করা যায় কিন্তু তৃণমূল ও বিজেপি একটা সিক্কা পয়সার টেল ও হেড এদের কে কেউ বিশ্বাস করেনা। জিএসটি চেয়ারম্যানের অমিত মিত্র তৃণমূলের উপহার ও বিজেপি হাজার টাকার নোট বাতিল দুই হাজার চালু করার চক্রান্ত দশ টাকার জিনিসের দাম কুড়ি টাকা, দুই টাকা চালের হাঁড়ি চাইছে হাজার টাকার জ্বালানিতে।

Comments are closed.