congress jds

বেঙ্গালুরু: ঠিক যেমনটা আশঙ্কা করা হচ্ছিল, সে রকমই হওয়ার পথে কর্নাটকের রাজনীতি। বুধবার সকাল থেকে অন্তত পাঁচ জন জয়ী বিধায়কের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছে না কংগ্রেস এবং জেডিএস। যদিও এই খবর সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়া। অন্য দিকে কংগ্রেস-জেডিএস বিধায়কদের পাশে নেওয়ার ব্যাপারে বিজেপির ‘অপারেশন’ যে শুরু হয়েছে তার ইঙ্গিত দিয়েছেন বিজেপির এক বিধায়ক।

বুধবার সকালেই বেঙ্গালুরুতে বিধায়কদের নিয়ে বৈঠকে বসার কথা ছিল কংগ্রেসের। কিন্তু তিন জন বিধায়কের সঙ্গে যোগাযোগ করতে না পারায় সেই বৈঠক পিছিয়ে দিতে হয়। এই তিন জন বিধায়ক হলেন রাজশেখর পাটিল, আনন্দ সিংহ এবং নগেন্দ্র। এ দিকে এ দিন সকালে বিধায়কদের নিয়ে জেডিএসের যে বৈঠক হয় সেই বৈঠকে হাজির ছিলেন না দুই বিধায়ক।

পাশাপাশি কংগ্রেসের আরও একজন বিধায়ক অভিযোগ করেছেন বিজেপির তরফ থেকে তাঁকে বার্তা দেওয়া হয়েছিল। তিনি বলেন, “বিজেপি নেতারা আমায় ফোন করেছিলেন। আমাকে বলা হয়, বিজেপিতে যোগদান করলে আমাকে মন্ত্রিত্ব দেওয়া হবে। কিন্তু আমি কোথাও যাচ্ছি না। আমি এখানেই থাকছি। আমাদের মুখ্যমন্ত্রী এইচডি কুমারস্বামী।”

যদিও বিধায়কদের ‘গায়েব’ হওয়ার সমস্ত খবর অস্বীকার করেছেন সিদ্দারামাইয়া। তিনি বলেন, “আমাদের সব বিধায়কই ঠিকঠাক রয়েছেন। কেউ নিরুদ্দেশ নয়। আমরাই সরকার গড়তে চলেছি।” কংগ্রেসের দাবি, জয়ী বিধায়কদের নিরাপদে রাখতে অন্য পথের চিন্তাভাবনা শুরু করেছে তারা। অর্থাৎ ফের কোনো রিসোর্ট রাজনীতি দেখতে পারে কর্নাটক।

বিজেপি তরফ থেকে চাপ রয়েছে সেটা স্বীকার করে নিয়েছেন কংগ্রেস নেতা ডিকে শিবকুমার। তিনি বলেন, “বিজেপি আমাদের বিধায়কদের শিকার করার চেষ্টা করছে। বিভিন্ন দিক থেকে খুব চাপ আসছে। কিন্তু আমরাও বিভিন্ন পন্থা নেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি।”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here