নয়াদিল্লি: প্রাক্তন কংগ্রেস নেতা গুলাম নবি আজাদ (Ghulam Nabi Azad) নিজের নিজের নতুন দল গঠনের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত। দলের প্রথম ইউনিট ১৪ দিনের মধ্যে জম্মু ও কাশ্মীরে শুরু হবে বলে তাঁর ঘনিষ্ঠ সূত্রে খবর।

গুলাম নবি আজাদের নজর কাশ্মীর নির্বাচন

আজাদের ঘনিষ্ঠ জিএম সারুরি বলেছেন, ২০১৯ সালের ৫ আগস্টের আগে জম্মু ও কাশ্মীর যে বিশেষ মর্যাদা ছিল, তা পুনরুদ্ধার করার আহ্বান থাকছে দলের ইস্তাহারে। শুক্রবার কংগ্রেসের অন্তর্বর্তী সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীকে (Sonia Gandhi) চিঠি লিখে কংগ্রেস থেকে পদত্যাগ করেছেন আজাদ। পদত্যাগের সময় কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধীর (Rahul Gandhir)-ও সমালোচনা করেন তিনি।

কংগ্রেস ছাড়ার পর আজাদের নজর রয়েছে কাশ্মীর নির্বাচনের দিকে। আগামী বছর শুরুতেই ভোট হয়ে যাবে উপত্যকায়। সেই নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে কাশ্মীরে স্থানীয় একটি দল তৈরি করবেন সদ্য ইস্তফা দেওয়া কংগ্রেস নেতা। ইতিমধ্যেই কাশ্মীরের জনা পাঁচেক নেতা কংগ্রেস থেকে পদত্যাগ করেছেন। আগামী দিনে কাশ্মীর কংগ্রেসের আরও বহু নেতা আজাদের পথ ধরে কংগ্রেস ছাড়তে পারেন বলে কানাঘুষো শুরু হয়েছে। সেই অনুগামীরা আজাদের নতুন দলে যোগ দেবেন বলেই মনে করা হচ্ছে।

জম্মু ও কাশ্মীর কংগ্রেসের অন্যতম প্রধান নেতা প্রাক্তন মন্ত্রী জিএম সরুরিও আজাদের সমর্থনে কংগ্রেস থেকে পদত্যাগ করেছিলেন। তিনি বলেছেন, তাঁদের নেতারা আদর্শগত ভাবে ধর্মনিরপেক্ষ এবং বিজেপির নির্দেশে কাজ করার প্রশ্নই আসে না। একই সঙ্গে তাঁর দাবি, আজাদ কংগ্রেস ছেড়ে দেওয়ার পরে কয়েকশো সিনিয়র কংগ্রেস নেতা, পঞ্চায়েতি রাজ প্রতিষ্ঠানের সদস্য এবং বিশিষ্ট কর্মীরা পদত্যাগ করেছেন।

সরুরি সংবাদ সংস্থা পিটিআই-কে বলেন, “আজাদ আমাদের নতুন দল চালু করার আগে তাঁর শুভাকাঙ্ক্ষীদের সঙ্গে আলোচনা করতে ৪ সেপ্টেম্বর জম্মুতে আসছেন।” এমনকী, শুক্রবার নিজের পদত্যাগের কয়েক ঘণ্টা পরে আজাদ নিজেই বলেছিলেন, শীঘ্রই একটি নতুন দল গঠন করবেন তিনি। এর প্রথম ইউনিট জম্মু ও কাশ্মীরে স্থাপন করা হবে।

সুবিধা করে উঠতে পারেননি অমরিন্দর সিংহ

সোনিয়া গান্ধীকে লেখা একটি পাঁচ পৃষ্ঠার চিঠিতে কংগ্রেসের সঙ্গে অর্ধশতাব্দীর সম্পর্ক ছিন্ন করলেন বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ আজাদ। এর আগে সোনিয়াকে একটি সাত পাতার চিঠি লিখে দলও ছেড়ে দিয়েছিলেন অমরিন্দর সিংহ।

গত বছর পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে পদত্যাগ করেছিলেন অমরিন্দর। নভজ্যোত সিং সিধুর সঙ্গে ঝামেলা চলাকালীন কংগ্রেস ছেড়েছিলেন তিনি। রাজ্যের বিধানসভা ভোটের কয়েক মাস আগে একটি নতুন দল তৈরিও করেছিলেন। রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি এবং সুখদেব সিং ধীন্ডসার নেতৃত্বাধীন শিরোমণি অকালি দল (সানিউক)-এর সঙ্গে জোট বেঁধে লড়েছিল ‘পঞ্জাব লোক কংগ্রেস’। তবে, একজন প্রার্থীও জিততে পারেনি। অমরিন্দর সিং নিজেও তাঁর ঘরের আসন পাতিয়ালা শহর কেন্দ্র থেকে পরাজিত হন।

আরও পড়তে পারেন: 

গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে দুই বিএসএফ জওয়ানের ৭ দিনের পুলিশ হেফাজত, পথে নামছে তৃণমূল

সাইবার অপরাধের ঘটনা বেড়ে দ্বিগুণ, অনলাইন জালিয়াতি মোকাবিলায় পর্যাপ্ত পরিকাঠামোর অভাব

ডিএ, স্বচ্ছ নিয়োগের দাবিতে ২৯টি সরকারি কর্মচারী সংগঠনের মিছিল

ঝাড়খণ্ড সংকট! বিধায়কদের নিরাপদ আস্তানায় পাঠিয়ে দিল জেএমএম-কংগ্রেস

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন