‘হাত’ ছেড়ে ‘পদ্ম’ ধরতেই চওড়া কপাল, ত্রিপুরার মানিক সাহার মতো একই ইতিহাস উত্তরপূর্বের এই মুখ্যমন্ত্রীদের

0

কলকাতা: দলবদল এখন কোনো ব্যাপারই নয়। আজ এই দল তো কাল ওই দল, এমনকী সকালে এক দলে যোগ দিয়ে আবার পুরনো দলে ফিরে আসার ঘটনাও এখন অবাক করে না। তবে দলবদলের মহিমা কিন্তু অপার!

নতুন করে বলার নয়,সদ্য মুখ্যমন্ত্রী বদল হয়েছে ত্রিপুরায়। শনিবার ইস্তফা দেন বিপ্লব দেন। রবিবার মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেন মানিক সাহা। ভোটের মাত্র মাসদশেক আগে বিজেপি-র মুখ্যমন্ত্রী বদল নিয়ে চলছে জল্পনা-কল্পনা। থেমেও যাবে সময়ের স্রোতে। কারণ এটাই প্রথম নন, এর আগে ভোটের নামমাত্র কয়েক মাস আগে মুখ্যমন্ত্রী বদলে চমক দিয়েছিল বিজেপি। সম্প্রতি সেই তালিকায় জুড়েছিল উত্তরাখণ্ড, গুজরাত এবং কর্নাটকের নাম। এখন দেখে নেওয়া যাক, উত্তরপূর্বের রাজ্যগুলিতে কংগ্রেসত্যাগী নেতাদের কী ভাবে শীর্ষস আসনে বসিয়েছে বিজেপি।

1মানিক সাহা, ত্রিপুরা

জানেন তো, ক’বছর আগেও কংগ্রেসে ছিলেন মানিক। বিজেপি-তে গিয়ে রাজ্যসভার সাংসদ, দলের রাজ্য সভাপতি। শেষমেশ ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রিত্ব পেয়েছেন দাঁতের ডাক্তারবাবু।

২০১৬ সালে কংগ্রেস থেকে যোগ দিয়েছিলেন বিজেপি-তে। ২০১৮ সালে ত্রিপুরা বিজেপি-র সভাপতি হন। ২০২২-এ নির্বাচিত হন রাজ্যসভার সাংসদপদে। আর ২০২২-এ মুখ্যমন্ত্রী। তিনি ত্রিপুরার একাদশতম মুখ্যমন্ত্রী।

2হিমন্ত বিশ্বশর্মা, অসম

২০২১ সালে অসমের পঞ্চদশতম মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা। সর্বানন্দ সোনওয়ালের কাছ থেকে দায়িত্ব বর্তায় তাঁর হাতে। ২০১৫ সালে কংগ্রেস ছেড়েছিলেন হিমন্ত।

২০১৬ সালের বিধানসভা এবং ২০১৯-এর লোকসভায় বিজেপি-র প্রচারে অন্যমাত্রা এনে দিয়েছিলেন হিমন্ত। তা সত্ত্বেও রাজ্য মন্ত্রীসভার সদস্য হিসেবেই ঠাঁই মিলেছিল তাঁর। ২০২১-এর ভোটে রেকর্ড মার্জিনে জয়ের পর তাঁকেই মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মনোনীত করে গেরুয়া শিবির।

3এন বিরেন সিংহ, মণিপুর

২০১৬ সালে কংগ্রেস ছেড়ে দেন এন বিরেন সিংহ। যোগ দেন বিজেপি-তে। তার পরের বছরেই মণিপুরের বিধানসভা ভোট। প্রায় ১৫ বছর পর অ-কংগ্রেসি সরকার গঠন। মুখ্যমন্ত্রী বিরেন।

এর আগে, ইবোবি সিংহের নেতৃত্বাধীন সরকারে মন্ত্রী ছিলেন বিরেন। তবে প্রদেশ কংগ্রেস কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছিলেন তিনি। চলতি বছরের বিধানসভা ভোটে বিরেনের নেতৃত্বে লড়ে জয় হাসিল করেছে বিজেপি।

4নেইফিউ রিও, নাগাল্যান্ড

২০০২ সালে কংগ্রেস ত্যাগ করেন নেইফিউ রিও। নাগাল্যান্ড ইস্যুতে তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী এসসি জামিরের সঙ্গে মতপার্থক্যের কারণে তিনি পদত্যাগ করেছিলেন। নাগা পিপলস ফ্রন্টে (এনপিএফ) যোগ দেন রিও। তাঁর নেতৃত্বাধীন জোট ২০০৩ সালে সরকার গড়ে। সঙ্গে ছিল বিজেপি। ২০০৮ সালে ফের মুখ্যমন্ত্রিত্ব। ২০১৮-তেও তিনি।

তবে ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে বিজেপি-র সঙ্গে জোট ভেঙে দেয় এনপিএফ। রিও তখন ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক প্রগ্রেসিভ পার্টিতে যোগ দেন। ফের হাত ধরেন বিজেপি-র।

আরও পড়তে পারেন: 

ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার সিরিয়াল অভিনেত্রী পল্লবী দে-র ঝুলন্ত দেহ

নাবালকের ঠোঁটে চুম্বন, আদর করা ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৭ ধারার অধীনে প্রকৃতিবিরুদ্ধ অপরাধ নয়, বলল বম্বে হাইকোর্ট

খোঁজ মিলল না ধর্ষণে অভিযুক্ত মন্ত্রীপুত্রের, দরজায় নোটিশ সেঁটে ফিরতে হল দিল্লি পুলিশকে

কমল দৈনিক সংক্রমণ, আগের দিনের চেয়ে হ্রাস ১২ শতাংশ

রবিবার শপথগ্রহণ ত্রিপুরার নয়া মুখ্যমন্ত্রী মানিক সাহার

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল