সংখ্যাগরিষ্ঠতার উপর দিয়ে যাচ্ছে কংগ্রেস, এ বারেও ‘ঐতিহ্য’ ধরে রাখার প্রবণতা হিমাচলে

0

সিমলা: সাড়ে তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে বিধানসভা নির্বাচনে রাজ্যে সরকার পরিবর্তনের নজির রয়েছে হিমাচলপ্রদেশে। বৃহস্পতিবার ভোটগণনার প্রাথমিক পর্বে শাসক দল বিজেপি এগিয়ে থাকলেও বেলা গড়ানোর সঙ্গেই এগিয়ে চলেছে কংগ্রেস।

বেলা ১২টার সময় দেখা যায়, এগিয়ে থাকা আসনের ভিত্তিতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পার করে ফেলেছে কংগ্রেস। ৬৮ আসনের বিধানসভায় কংগ্রেস এগিয়ে রয়েছে ৩৭টিতে। যেখানে বিজেপির এগিয়ে থাকা আসন সংখ্যা ২৮।

বুথ ফেরত সমীক্ষার পূর্বাভাসে বলা হয়েছিল, ঐতিহ্য ভেঙে রেকর্ড গড়তে চলেছে বিজেপি। ৪০-এর বেশি আসনে জিতে দ্বিতীয় মেয়াদে হিমাচলের ক্ষমতায় আসতে চলেছে গেরুয়া শিবির। কিন্তু এখনও পর্যন্ত যা প্রবণতা, তাতে বুথ ফেরত সমীক্ষার ফলাফলের পূর্বাভাস মিলবে কি না, তা প্রশ্নের মুখে।

গত বার, ২০১৭ সালের ফল অনুযায়ী, বিজেপি পেয়েছিল ৪৪টি আসন। কংগ্রেস পায় ২১টি । সিপিএম পেয়েছিল ১টি আসন এবং নির্দল প্রার্থীরা জিতেছিলেন ২টি আসনে। ১৯৮৫ সালের পর আর কখনও শাসক দলকে পুনঃনির্বাচিত করেনি হিমাচল।

তবে এ বারের নির্বাচনে বিজেপির স্লোগান ছিল ‘রাজ নেহি, রিওয়াজ বদলেগা’, যার অর্থ ‘ঐতিহ্য বদলাবে, সরকার নয়’। ঠিক যে ভাবে আরেক পার্বত্য রাজ্য উত্তরাখণ্ডে একই ধরনের স্লোগান বাস্তবায়িত করেছে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত ফলাফলের প্রবণতা বলছে, হিমাচলে এসে সম্ভবত থমকে যেতে হবে বিজেপি-কে!

তবে “রিওয়াজ” এর কারণেই আত্মবিশ্বাস বেড়েছে কংগ্রেসের। সেই আত্মবিশ্বাসের উপর ভর দিয়েই হিমাচলে বাজি ধরেছে কংগ্রেস। শেষ দু’বছরে দেশের একের পর এক রাজ্যে পরাজয়ের মুখোমুখি হয়ে হিমাচল দখলে মরিয়া কংগ্রেস। এর পরই, ২০২৩ সালে বিধানসভা নির্বাচন কংগ্রেসের হাতে থাকা দুই রাজ্য ছত্তীসগঢ় এবং রাজস্থানে। ফলে হিমাচলের ফলাফল ওই দুই রাজ্যেও অক্সিজেন জোগাতে পারে কংগ্রেসকে।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন