মল্লিকার্জুন খড়্গে না কি শশী তারুর? কংগ্রেস প্রেসিডেন্ট পদে কোন অ-গান্ধী নেতা

0

নয়াদিল্লি: বুধবারই নতুন প্রেসিডেন্ট পেতে চলেছে কংগ্রেস। দীর্ঘ দু’দশকেরও বেশি সময় পরে কংগ্রেসের শীর্ষ পদে বসতে চলেছেন গান্ধী পরিবারের বাইরের কোনো নেতা। সোমবার দেশ জুড়ে অনুষ্ঠিত হয় কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচন। বুধবার ভোটগণনার প্রস্তুতি তুঙ্গে।

কংগ্রেস প্রেসিডেন্ট হওয়ার লড়াইয়ে নেমেছেন মল্লিকার্জুন খড়্গে (Mallikarjun Kharge) ও শশী তারুর (Shashi Tharoor)। তবে প্রায় সকলেই একমত, প্রেসিডেন্টের কুর্সিতে বসতে চলেছেন খড়্গেই। কারণ, গান্ধীদের কেউই প্রতিদ্বন্দ্বিতা না করলেও খড়্গেকেই ‘অনুমোদিত’ প্রার্থী হিসাবে দেখা হচ্ছে। তবে দুই প্রার্থীই নিজেদের জয়ের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী।

খড়্গে এবং তারুর দু’জনেই জানিয়েছেন, গান্ধীরা নির্বাচনের বিষয়ে নিরপেক্ষ ছিলেন। একই সঙ্গে তারুরের অভিযোগ, “আরেক প্রার্থীর প্রতি দলের একাংশের পক্ষপাতিত্বের কারণে আমাদের বিরুদ্ধে প্রতিকূলতা তৈরি হয়েছে”। যদিও কংগ্রেসের সেন্ট্রাল ইলেকশন অথরিটির চেয়ারম্যান মধুসূদন মিস্ত্রী নির্বাচন নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বলেছেন, একটি “অবাধ, সুষ্ঠু ও স্বচ্ছ” হয়েছে।

কংগ্রেস সূত্রে জানা গিয়েছে, মোট ৯,৯১৫টি ভোটের মধ্যে ৯৬ শতাংশ ভোট পড়েছে। পশ্চিমবঙ্গে ভোট পড়েছে ৮৮ শতাংশ। ভোটদান পর্বে কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। ৮৭ জন প্রতিনিধি নয়া দিল্লিতে এআইসিসির সদর দফতরে নিজেদের মতদান করেছেন। রাহুল গান্ধী-সহ ৫০ জন ভোট দিয়েছেন কর্নাটকের ভারত জোড়ো যাত্রা শিবিরে।

মঙ্গলবারই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ব্যালট বক্স এসে পৌঁছে গিয়েছে দিল্লিতে কংগ্রেসের সদর দফতরের স্ট্রং রুমে। সেখানেই এ দিন সকাল ১০টা থেকে শুরু কাউন্টিং। দুপুর ৩টে-৪টের মধ্যে নয়া প্রেসিডেন্টের নাম ঘোষণা করবে কংগ্রেস হাইকমান্ড।

বলে রাখা ভালো, স্বাধীনতার পর থেকেই বেশির ভাগ সময়ই কংগ্রেসের নেতৃত্ব দিয়েছেন গান্ধী পরিবারের কোনো না কোনো সদস্য। তাঁর সর্বসম্মত ভাবেই নির্বাচিত হয়ে এসেছেন। একাধিক প্রার্থী থাকায় মাত্র ছ’বার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল কংগ্রসে। প্রথম বার, ১৯৩৯ সালে মহাত্মা গান্ধী সমর্থিত পি সীতারামাইয়া হেরে গিয়েছিলেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর কাছে।

আরও পড়ুন: আজ খসড়া তালিকা প্রকাশ, পঞ্চায়েত ভোট কবে

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন