‘বিপুল সংখ্যক অবাঞ্ছিত গর্ভধারণ এবং গর্ভপাতের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে লকডাউন’

0
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: লকডাউনের কারণে দেশের পরিবার পরিকল্পনা পরিষেবায় ব্যাঘাত ঘটেছে। কোভিড-১৯ লকডাউনের জেরে বৃহত্তর বেসরকারি ক্ষেত্রের পরিবার পরিকল্পনা পরিষেবায় প্রভাব পড়ার কারণে গর্ভনিরোধের হার ১৫-২৩ শতাংশ হ্রাস পেতে পারে বলে একটি মূল্যায়নে উঠে এসেছে।

বিশ্লেষকরা জানাচ্ছেন, এর ফলে ২৩ লক্ষ ৮০ হাজার অনিচ্ছাকৃত গর্ভধারণ, ৬ লক্ষ ৭৯ হাজার ৮৬৪ শিশুর জন্ম, ৮ লক্ষ ৩৪ হাজার ৪২টি অসুরক্ষিত গর্ভপাত-সহ মোট ১৪ লক্ষ ৫০ হাজার গর্ভপাত এবং ১ হাজার ৭৪৩টি প্রসবকালীন মৃত্যুর ঘটনা ঘটতে পারে।

Shyamsundar

মূল্যায়নটি করেছে ফাউন্ডেশন অব রিপ্রোডাক্টিভ হেলথ সার্ভিসেস ইন্ডিয়া। এ ব্যাপারে আগামী ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত পরিবার পরিকল্পনা পরিষেবার পূর্ণাঙ্গ ক্ষমতা এবং গর্ভনিরোধক উপকরণের ক্রয়-বিক্রয়ের পরিসংখ্যানের উপর নির্ভর করে অনুমান করা হয়েছে। বলায় হয়েছে, লকডাউনের কারণে প্রায় ২৫ লক্ষ ৬০ হাজার সঙ্গী গর্ভনিরোধকের অভাব বোধ করতে পারেন।

বলা হয়েছে, বর্তমান পরিস্থিতির নিরিখে এই সময়কালে ৬ লক্ষ ৯০ হাজার স্টেরিলাইজেশন পরিষেবা, ৯ লক্ষ ৭০ হাজার ইন্ট্রা-ইউটেরিন ডিভাইস, ৫ লক্ষ ৮০ হাজার ইনজেক্টেবল কন্ট্রাসেপটিভ, ২৩ লক্ষ ৮ হাজার ওরাল কন্ট্রাসেপটিভ বড়ি, ৯ লক্ষ ২০ হাজার জরুরিকালীন কন্ট্রাসেপটিভ বড়ি এবং ৪০ কোটি ৫০ লক্ষ ৯৬ হাজার কন্ডোমের ক্ষতি হতে পারে।

এই মূল্যায়নটি কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের অধীনস্থ হেলথ ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেমের সামাজিক বিপণনের পরিসংখ্যান এবং খুচরো বিক্রি নিরীক্ষণের তথ্যগুলির উপর নির্ভর করে তৈরি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: ‘হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন কোভিড চিকিৎসার বিস্ময়কর ওষুধ নয়, পরিণতি মারাত্মকও হতে পারে’

ফাউন্ডেশনের সিইও ভিএস চন্দ্রশেখর জানিয়েছেন, “লকডাউনের কারণে গর্ভপাত পরিষেবা প্রভাবিত হওয়ার কারণে অনেক মহিলাই অনিচ্ছাকৃত গর্ভধারণকে মেনে নিতে বাধ্য হতে পারেন। স্বাভাবিক ভাবেই জন্মের হারও তুলনামূলক ভাবে বেড়ে যেতে পারে”।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন