ওয়েবডেস্ক: ছত্তীসগঢ়ে বিজেপি কার্যত ধুয়েমুছে সাফ। কংগ্রেস জোরকদমে সরকার গড়ার পথে। রাজস্থানেও ধরাশায়ী বিজেপি। সরকার গড়ার ম্যাজিক ফিগার ১০০ ছুঁয়ে ফেলেছে কংগ্রেস। এই দুই রাজ্যেরই বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী হার স্বীকার করে নিয়েছে। মধ্যপ্রদেশেও সরকার গড়ার দাবি জানাল কংগ্রেস।

মঙ্গলবার রাতেই মধ্যপ্রদেশের রাজ্যপাল আনন্দিবেন পটেলকে চিঠি লিখে সরকার গড়ার দাবি জানিয়েছেন কংগ্রেস নেতা কমল নাথ। চিঠিতে কমল নাথ লিখেছেন, “কংগ্রেস একক বৃহত্তম দল হয়েছে। সংখ্যাগরিষ্ঠের সমর্থন রয়েছে কংগ্রেসের। তার ওপর সব জয়ী নির্দল প্রার্থী কংগ্রেসকে সমর্থন করার আশ্বাস দিয়েছেন।” সম্ভব হলে সব কেন্দ্রের ফল বেরোনোর পর মঙ্গলবার রাতেই রাজ্যের সিনিয়র কংগ্রেস নেতাদের সঙ্গে নিয়ে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করতে চান কমল নাথ। কিন্তু রাজ্যপালের অফিস থেকে জানানো হয়েছে নির্বাচন কমিশন নির্বাচন সংক্রান্ত ছবিটি স্পষ্ট করে দেওয়ার পর রাজ্যপাল নেতাদের সঙ্গে দেখা করবেন। ভোটগণনার সর্বশেষ পরিস্থিতি জানার জন্য চোখ রাখুন খবর অনলাইনে।

====================================================

রাত ০০.২০ – চার রাজ্যে দলগত ফল (সূত্র: নির্বাচন কমিশন)

ছত্তীসগঢ়

মোট আসন – ৯০: কংগ্রেস – জয়ী ৪৭, এগিয়ে ২১; বিজেপি – জয়ী ১০, এগিয়ে ৫; জনতা কংগ্রেস (ছত্তীসগঢ়) – জয়ী ৩, এগিয়ে ২; বিএসপি – জয়ী ১, এগিয়ে ১।

মধ্যপ্রদেশ

মোট আসন- ২৩০: বিজেপি – জয়ী ৮৭, এগিয়ে ২২; কংগ্রেস – জয়ী ৮৮, এগিয়ে ২৬; সমাজবাদী পার্টি – জয়ী ১, এগিয়ে ১, বিএসপি – এগিয়ে ২; নির্দল – জয়ী ৩, এগিয়ে ১।

রাজস্থান (১টি বাদে সব ফল প্রকাশিত) 

মোট আসন – ১৯৮: কংগ্রেস – ৯৯; বিজেপি – ৭৩; বিএসপি -৬; সিপিআইএম – ২; ভারতীয় ট্রাইবাল পার্টি – ২; রাষ্ট্রীয় লোক দল – ১; রাষ্ট্রীয় লোকতান্ত্রিক পার্টি – ৩; নির্দল – জয়ী ১২, এগিয়ে ১।

তেলঙ্গানা (সব ফল প্রকাশিত)

মোট আসন – ১১৯: বিজেপি – ১; কংগ্রেস – ১৯; এআইএমআইএম – ৭; টিআরএস – ৮৮; তেলুগু দেশম – ২; ফরোয়ার্ড ব্লক – ১; নির্দল – ১।

২২:১৫– ‘নির্বাচন ফলে মেনে নিলাম,’ টুইট করলেন মোদী। তাহলে কি রাজস্থান, ছত্তীসগঢ়ের পাশাপাশি মধ্যপ্রদেশেও হার স্বীকার করে নিল বিজেপি?

২১:৪০– চার রাজ্যের ফলাফল নিশ্চিত হলেও, এখনও নিশ্চিত নয় মধ্যপ্রদেশ। এই মুহূর্তে পাঁচটা আসনের ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে কংগ্রেস।

২০:৪৫– পদত্যাগ করলেন বসুন্ধরা রাজে সিন্ধিয়া। বিজেপির হার স্বীকার করলেন।

২০:২৫– রাজস্থানে হারলেন ভারতের প্রথম গোরু মন্ত্রী। নির্দলের বিরুদ্ধে হেরে গিয়েছে মন্ত্রী ওটারাম দেবাসী

২০:১৫– রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ এবং ছত্তীসগঢ়ে বিজেপির থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে শহরাঞ্চল এবং আদিবাসীদের একটা বড়ো অংশ।

২০:০৫– এখনও অনিশ্চয়তার মোড়কে মধ্যপ্রদেশ। রাহুল বললেন রাজ্যটি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী তিনি।

১৯:৫০– প্রতিশ্রুতি পূরণে ব্যর্থ মোদী, বললেন রাহুল।

১৯:৪৫– সাংবাদিক সম্মেলনে রাহুল গান্ধী। কৃষক, যুবসম্প্রদায়ের জয়, বললেন রাহুল।

১৯:৪০– ১১১:১১০ অনুপাতে মধ্যপ্রদেশে আবার এগিয়ে গেল বিজেপি।

১৯:২৫– কংগ্রেসের দিকেই সমর্থনের ইঙ্গিত বিএসপি। রাজস্থান এবং মধ্যপ্রদেশে তাদের দরকার হতে পারে কংগ্রেসের।

১৯:২০– মধ্যপ্রদেশ নিয়ে এখনও অনিশ্চয়তা। যদিও কংগ্রেসই এগিয়ে রয়েছে। তাদের এবং বিজেপির মধ্যে ব্যবধানে ৪-৫-এ ঘোরাফেরা করছে।

১৮:৫০– মধ্যপ্রদেশে গণনায় বিলম্বের কারণ ব্যক্ত করার জন্য কিছুক্ষণের মধ্যেই কমিশনের সাংবাদিক সম্মেলন।

১৮:৪৫– মধ্যপ্রদেশের ৩৪টা আসনে বিজেপি এবং কংগ্রেস প্রার্থীদের ব্যবধান ১০০০ ভোটের থেকেও কম। তাই কার ভাগ্যে যাচ্ছে মধ্যপ্রদেশ, সেটা এখনও বোঝা যাচ্ছে না। সর্বশেষ পরিস্থিতিতে কংগ্রেস ১১৪ এবং বিজেপি ১০৯ ভোটে এগিয়ে।

১৮:১৫– এই মুহূর্তের ইঙ্গিতে আবার ত্রিশঙ্কুর দিকে রাজস্থান। নির্বাচন কমিশনের হিসেব বলছে একক সংখ্যাগরিষ্ঠ হলেও কংগ্রেস এখন এগিয়ে ৯৭ আসনে এগিয়ে।

১৮:০০– কংগ্রেসের বিধায়কদের মত নিয়েই মুখ্যমন্ত্রী বাছা হবে। জানাল রাজস্থান কংগ্রেস।

১৭:৪০– হারের পুরো দায় আমি নিলাম, ইস্তফা দিয়ে বললেন ছত্তীসগঢ়ের বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী রমন সিংহ

১৭:৩৫– রাজস্থানে বিধানসভা ত্রিশঙ্কু হলে কংগ্রেসকে সমর্থনের বার্তা দিল রাষ্ট্রীয় লোক দল। এই মুহূর্তে একটি আসনে এগিয়ে তারা।

১৭:২৫- কমিশনের তথ্য অনুযায়ী ছত্তীসগঢ়ে কংগ্রেস পক্ষে পড়েছে ৪২.৮ শতাংশ ভোট, বিজেপির ৩২.৮ শতাংশ ভোট। রাজস্থানে কংগ্রেস এবং বিজেপি পেয়েছে যথাক্রমে ৩৯.২ এবং ৩৮.৭ শতাংশ ভোট। মধ্যপ্রদেশে দু’দলই ৪১.৪ শতাংশ করে ভোট পেয়েছে।

১৭:১৫– মিজোরাম ছাড়া সরকারি ভাবে এখনও কোথাওই ফলপ্রকাশ হয়নি। এই মুহূর্তে রাজস্থানে কংগ্রেস ১০২, বিজেপি ৭২ আসনে এগিয়ে। মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস ১১৯ এবং বিজেপি ১০২ আসনে এগিয়ে। ছত্তীসগঢ়ে কংগ্রেস ৬২ এবং বিজেপি ১৯ আসনে এগিয়ে। তেলঙ্গানায় টিআরএস ৮৭ এবং কংগ্রেস ২২ আসনে এগিয়ে।

১৭:০০– উন্নয়নের প্রতিশ্রুতিত মদলে রাম মন্দির নিয়ে বারাবারি করাই বিপদ ডেকে এনেছে। মন্তব্য বিজেপি নেতা সঞ্জয় কাকাড়ের।

১৬:৫০– মিজোরামে ভোটগণনা শেষ। ২৬টা আসন পেয়ে ক্ষমতা দখল করল মিজো জাতীয় ফ্রন্ট। কংগ্রেসের ভাগ্যে জুটেছে সাকুল্যে পাঁচটি আসন। নির্দলরা পেয়েছে ৮টি আসন। বিজেপি জিতেছে একটি আসনে। অন্যদিকে রাজস্থানে কংগ্রেস ১০৩ এবং বিজেপি ৭০টি আসনে এগিয়ে। মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস ১১৩ এবং বিজেপি ১০৩ আসনে এগিয়ে।

১৬:২৫ বুধবার সকালে রাজস্থান কংগ্রেসের পরিষদীয় কমিটির বৈঠক: সচিন পায়লট

১৬:১৫– কমিশনের তথ্য অনুযায়ী সর্বশেষ পরিস্থিতি। রাজস্থান- কংগ্রেস ১০২টা আসনে এগিয়ে/জয়ী, বিজেপি ৭১টা আসনে এগিয়ে/জয়ী। মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস ১১৪টা আসনে এগিয়ে/জয়ী, বিজেপি ১০৬টা আসনে এগিয়ে/জয়ী। ছত্তীসগঢ়ে কংগ্রেস ৬২টা আসনে এগিয়ে/জয়ী এবং বিজেপি ১৩টা আসনে এগিয়ে/জয়ী।

১৫:৫৫– কংগ্রেসকে হারিয়ে মিজোরামে ক্ষমতা দখল করল মিজো জাতীয় ফ্রন্ট। জানাল নির্বাচন কমিশন।

১৫:৪০– কমিশনের ইঙ্গিত রাজস্থানে একক সংখ্যাগরিষ্ঠ হওয়ার পথে কংগ্রেস। এই মুহূর্তে ১০৩টি আসনে এগিয়ে তারা। বিজেপি এগিয়ে ৬৮ আসনে। নির্দলরা এগিয়ে ১২টি আসনে। মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস এবং বিজেপি যথাক্রমে ১১৫ এবং ১০৫টি আসনে এগিয়ে। ছত্তীসগঢ়ে কংগ্রেস ৬২ এবং বিজেপি ১৩টি আসনে এগিয়ে

১৫:০০ রাজস্থানে জিতলেন তিন মহারথী। ৫০ হাজার ভোটে জিতলেন সচিন পায়লট, ৪৫ হাজার ভোটে জিতলেন বসুন্ধরা রাজে সিন্ধিয়া এবং ৩০ হাজার ভোটে জিতলেন অশোক গেহলট

১৪:৩০– চূড়ান্ত হাড্ডাহাড্ডি লড়াই চলছে মধ্যপ্রদেশে। এই মুহূর্তে বিজেপি ১১১ এবং কংগ্রেস ১০৯ আসনে এগিয়ে। রাজস্থানে কংগ্রেস ১০০ এবং বিজেপি ৭৩ আসনে এগিয়ে। ছত্তীসগঢ়ে কংগ্রেস ৬১ এবং বিজেপি ১৫ আসনে এগিয়ে।

১৩:৫৫– রাজস্থানে ১০১ আসনে এগিয়ে কংগ্রেস এবং ৭১ আসনে এগিয়ে বিজেপি। মধ্যপ্রদেশে ১১১ আসনে বিজেপি এবং কংগ্রেস ১০৯ আসনে। ছত্তীসগঢ়ে ৫৯ আসনে এগিয়ে কংগ্রেস এবং বিজেপি ১৭ আসনে

১৩:২০– নির্বাচন কমিশনের সর্বশেষ তথ্য। রাজস্থানে কংগ্রেস ৯৬, বিজেপি ৭৬ আসনে এগিয়ে। ছত্তীসগঢ়ে কংগ্রেস ৫৮, বিজেপি ১৭ আসনে এগিয়ে। মধ্যপ্রদেশে বিজেপি ১১১ এবং কংগ্রেস ১০৮ আসনে এগিয়ে। তেলঙ্গানায় টিআরএস ৮৭ এবং কংগ্রেস ২২ আসনে এগিয়ে।

১২:৫৫– অসমর্থিত সূত্রের খবর রাজস্থানে দুটি আসন জিতেছে সিপিএম। সরকারের গড়ার ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা পালন করতে হতে পারে সিপিএমকে।

১২:৩০– ছত্তীসগঢ়ে ভরাডুবি বিজেপির। ৬২টা আসনে কংগ্রেস এবং ১৯টা আসনে এগিয়ে বিজেপি।

১২:১৫– একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে কংগ্রেস। আশাবাদী অশোক গেহলট

১২:০০-রাজস্থানে নির্বাচন কমিশনের হিসেব- কংগ্রেস ৯৯, বিজেপি ৭৯, বিএসপি ২, সিপিএম ২, অন্যান্য ১৫

১১:৪০– মধ্যপ্রদেশে লড়াই হাড্ডাহাড্ডি। কংগ্রেসকে কিছুটা পেছনে রেখে আবার এগিয়ে গিয়েছে বিজেপি।

১১:৩০– মিজোরামে হেরে গেলেন মুখ্যমন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা লাল ঠানওয়ালা

১১:২৫– রাজস্থানে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে কংগ্রেস, বললেন সচিন পায়লট।

১১:০৭– তিন রাজ্যেই বিজেপির থেকে এগিয়ে রয়েছে কংগ্রেস। তবে রাজস্থান এবং মধ্যপ্রদেশ ত্রিশঙ্কু হওয়ার ইঙ্গিত দিচ্ছে।

১১:০৫– নিজের কেন্দ্র এগিয়ে রয়েছেন শিবরাজ সিংহ চৌহান

১০:৫০– রাজস্থানের ভদ্রা এবং দুঙ্গরগড় কেন্দ্রে এগিয়ে রয়েছেন সিপিআইএম প্রার্থীরা।

১০:৪৫– কমিশনের তথ্য অনুযায়ী রাজস্থানে কংগ্রেস ৯১, বিজেপি ৭১ এবং অন্যান্যরা ২২টি আসনে এগিয়ে।

১০:৪০– মিজোরামে প্রাথমিক ইঙ্গিতে ম্যাজিক ফিগার পেরিয়ে গিয়েছে মিজো ন্যাশনাল ফ্রন্ট। ৪০-এর মধ্যে ২৫টা আসনে এগিয়ে তারা।

১০:৩৫– নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী ছত্তীসগঢ়ে কংগ্রেস ২১, বিজেপি ৫ এবং অজিত যোগীর জনতা কংগ্রেস ২টি আসনে এগিয়ে।

১০:৩০– নিজেদের কেন্দ্রে এগিয়ে রয়েছেন বসুন্ধরা রাজে সিন্ধিয়া, অশোক গেহলট এবং সচিন পায়লট।

১০:১০– তেলঙ্গানা আর মিজোরাম ছাড়া গোবলয়ের তিন রাজ্যেই নিজেদের প্রভাব বিস্তার করছে কংগ্রেস। এর মধ্যে ছত্তীসগঢ়ে সব থেকে বেশি প্রভাব তাদের। প্রাথমিক ইঙ্গিতে রাজস্থান এবং ছত্তীসগঢ়ে ম্যাজিক ফিগার পেরিয়েছে কংগ্রেস। মধ্যপ্রদেশেও ম্যাজিক ফিগারের কাছাকাছি তারা।

১০:০২– হায়দরাবাদে নিজের আসনে জিতলেন এআইএমআইএম নেতা আখবারুদ্দিন ওয়াইসি।

১০:০০– ভোটের ফলের ট্রেন্ড আসা শুরু হতেই উচ্ছ্বাসে মেতে উঠেছেন কংগ্রেস কর্মীরা।

৯:৫০– তিন রাজ্যেই ব্যবধান বাড়াচ্ছে কংগ্রেস। রাজস্থানে ৯৬, মধ্যপ্রদেশে ৯৩ এবং ছত্তীসগঢ়ে ৪৯ আসনে এগিয়ে কংগ্রেস। এই তিন রাজ্যে যথাক্রমে ৬৭, ৮২ এবং ২৬ আসনে এগিয়ে কংগ্রেস।

৯:৩০– রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ এবং ছত্তীসগঢ়ে এগিয়ে কংগ্রেস। এই মুহূর্তে রাজস্থানে কংগ্রেস ৮৩, বিজেপি ৬৯ আসনে এগিয়ে, মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস ৬৪ এবং বিজেপি ৫৭ আসনে এগিয়ে। ছত্তীসগঢ়ে কংগ্রেস ৩৯ এবং বিজেপি ২৭ আসনে এগিয়ে। তেলঙ্গানায় দাপট টিআরএস। এগিয়ে ৮২ আসনে। কংগ্রেসের হাতছাড়া হতে চলেছে মিজোরাম। তবে সবকিছুই প্রাথমিক ইঙ্গিত।

৯:২৫– নিজের আসনে পিছিয়ে রয়েছে তিন বারের মুখ্যমন্ত্রী রমন সিংহ।

০৯:১০– রাজস্থানে কংগ্রেস এগিয়ে ৬৬ আসনে এবং বিজেপি এগিয়ে ৪৬ আসনে এগিয়ে। ছত্তীসগঢ়ে বিজেপি ২৭, কংগ্রেস ২১ এবং বিএসপি তিনটে আসনে এগিয়ে। মধ্যপ্রদেশে বিজেপি ৪১ এবং কংগ্রেস ৩৪ আসনে এগিয়ে। তেলঙ্গানায় ৬৫ আসনে এগিয়ে টিআরএস। মিজোরামে এমএনএফ ৭টা এবং কংগ্রেস দুটি আসনে এগিয়ে।

৯:০০– বেশিরভাগ জায়গাতেই এখনও পোস্টাল ব্যালটেই গণনা চলছে।

৮:৫৫– পাঁচ বছর আগে রাজস্থানে মোট ২১টা আসন জিতেছিল কংগ্রেস। এ বার ৬৫টা আসনের মধ্যেই তারা এগিয়ে ৩৮ আসনে। নিজের আসনে এগিয়ে কংগ্রেস প্রার্থী অশোক গেহলট। টঙ্ক আসনে এগিয়ে সচিন পায়লট।

৮:৪০- এনডিটিভি অনুযায়ী এই মুহূর্তে রাজস্থানের ২৮টা আসনের মধ্যে কংগ্রেস ১৯ এবং বিজেপি ন’টা আসনে এগিয়ে। মধ্যপ্রদেশের ১৭টা আসনের মধ্যে বিজেপি ন’টা এবং কংগ্রেস ৮টা আসনে এগিয়ে। ছত্তীসগঢ়ে ১৭টা আসনের মধ্যে কংগ্রেস ৮টা, বিজেপি ৬টা এবং বিএসপি জোট ২টো আসনে এগিয়ে। তেলঙ্গানায় ২৪টা আসনের মধ্যে টিআরএস ১৭টা আসনে, কংগ্রেস ৬টা, বিজেপি একটি আসনে এগিয়ে।

৮:২৫– রাজস্থানে ১৭ আসনের ট্রেন্ড এসেছে। ১২টা আসনে কংগ্রেস এবং পাঁচটা আসনে বিজেপি এগিয়ে। মধ্যপ্রদেশে ন’টা আসনের ট্রেন্ড এসেছে। কংগ্রেস পাঁচটা এবং বিজেপি চারটে আসনে এগিয়ে। ছত্তীসগঢ়ে চারটে আসনের মধ্যে বিজেপি এবং কংগ্রেস উভয়েই দুটি করে আসনে এগিয়ে। তেলঙ্গানায় ছ’টার মধ্যে টিআরএস চারটে এবং কংগ্রেস দুটি আসনে এগিয়ে।

৮:২০– এনডিটিভি সূত্রে জানা যাচ্ছে, এই মুহূর্তে রাজস্থানের দশটা আসনের ট্রেন্ড এসেছে। কংগ্রেস ছ’টা এবং বিজেপি চারটে আসনে এগিয়ে। মধ্যপ্রদেশের পাঁচটা আসনের মধ্যে কংগ্রেস দুটো এবং বিজেপি ৩টে আসনে এগিয়ে। তবে এগুলি সবই পোস্টাল ব্যালট।

৮:১৫– এই মুহূর্তে রাজস্থানে কংগ্রেসের দুই মহারথী অশোক গেহলট এবং সচিন পায়লট নিজেদের আসনে এগিয়ে রয়েছেন। অন্যদিকে পিছিয়ে রয়েছেন বসুন্ধরা রাজে সিন্ধিয়া

৮:১২– এই মুহূর্তে পোস্টাল ব্যালটের গণনা চলছে। কিছুক্ষণের মধ্যেই ট্রেন্ড আসা শুরু হয়ে যাবে।

৮:০৫– রাজস্থানে আসন সংখ্যা ১৯৯, সেখানে ম্যাজিক ফিগার ১০১। মধ্যপ্রদেশে আসন সংখ্যা ২৩০, সেখানে ম্যাজিক ফিগার ১১৬। ছত্তীসগঢ়ে আসন সংখ্যা ৯০, সেখানে ম্যাজিক ফিগার ৪৫। তেলঙ্গানার আসন সংখ্যা ১১৯, সেখানে ম্যাজিক ফিগার ৬০। মিজোরামে আসন সংখ্যা ৪০, সেখানে ম্যাজিক ফিগার ২১।

৮:০০– রাজস্থানে প্রতি পাঁচ বছর অন্তর পালটে যায় সরকার। সুতরাং এ বার যদি সেখানে কংগ্রেস ক্ষমতা দখল করে তা হলে সেই ঐতিহ্যই বহাল থাকবে মরুরাজ্যে। অন্যদিকে পনেরো বছর পর মধ্যপ্রদেশের ক্ষমতা দখল করতে মরিয়া রাহুল গান্ধীর দল। ছত্তীসগঢ়েও কী হতে পারে, আন্দাজ করা যাচ্ছে না। সেখানে কংগ্রেস এবং বিজেপির ভবিষ্যৎ নিয়ে জনমত সমীক্ষা দু’ভাগ। মিজোরামে কংগ্রেস হেরে যাওয়া মানে সমগ্র উত্তরপূর্ব ভারত কংগ্রেস-মুক্ত। তেলঙ্গানায় টিআরএসের জিতে যাওয়া মানে বোঝা যাবে মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাওয়ের ম্যাজিক এখনও বহাল রয়েছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here