কাজে দিল না প্রধানমন্ত্রীর হুঁশিয়ারি, ঝাড়খণ্ডে গো-রক্ষকদের হাতে খুন মাংস ব্যবসায়ী

0
250
jharkhand lynching

রাঁচি: প্রধানমন্ত্রীর হুঁশিয়ারি যে গো-রক্ষকদের কানে যায়নি, তার প্রমাণ পাওয়া গেল হাতেনাতে। গো-ভক্তির নামে মানুষ খুন তিনি বরদাস্ত করবেন না, বৃহস্পতিবার আমদাবাদে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই খুন হয়ে গেলেন ঝাড়খণ্ডের এক মাংস ব্যবসায়ী। ঘটনাটি ঘটে রাঁচি থেকে ৪৮ কিমি দূরে রামগড়ের বাজারটাঁড়ের কাছে। পুলিশ জানিয়েছে, নিহত ব্যক্তির নাম আসগর আনসারি ওরফে আলিমুদ্দিন (৫০)। আলিমুদ্দিনের গাড়িটিও ভাঙচুর করে আগুন লাগিয়ে দেয় গো-ভক্তরা।

আরও পড়ুন: গো-ভক্তির নামে খুন বরদাস্ত করব না, গো-রক্ষকদের হুঁশিয়ারি দিলেন মোদী

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, রামগড়ের চিতরপুর বাজার থেকে মাংস কিনে গ্রামে ফিরছিলেন আলিমুদ্দিন। বাজারটাঁড়ে তাঁর গাড়িটিকে আটকায় কয়েক জন যুবক। গাড়িতে গো-মাংস নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, এই অভিযোগ তুলে তারা আমিনুদ্দিনকে গাড়ি থেকে টেনেহিঁচড়ে বের করে মারতে শুরু করে। চলে এলোপাতাড়ি কিলঘুসি।

আরও পড়ুন: ২০১০-এর পর গো-হিংসায় নিহতদের ৮৬% মুসলিম, মোদী-জমানাতেই ৯৭% ঘটনা

বাজারটাঁড়ের স্থানীয় দোকানদাররা কিছু বুঝে ওঠার দেখেন কয়েকটা লোক লাঠি হাতে সাদা মারুতি ভ্যানটি ভাঙতে শুরু করেছে। ওই ব্যক্তি হাতজোড় করে কিছু বলার চেষ্টা করেন। কিন্তু তাঁর কথায় কর্ণপাত না করে মারধর চলতে থাকে। পাশাপাশি গাড়ির ভিতর থেকে মাংস বের করে রাস্তায় ছুড়ে ফেলা হয়। কয়েক জন দোকানদার থামাতে গেলে দুষ্কৃতীরা তাঁদের দিকেই তেড়ে যায়। ভয়ে তাঁরা পালিয়ে এসে পুলিশকে খবর দেন। পুলিশ আসার আগেই দুষ্কৃতীরা গাড়িটিতে আগুন দেয়। জ্বলন্ত গাড়ির কাছেই পড়ে থাকেন আলিমুদ্দিন। পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করে রাঁচির রিমসে নিয়ে গেলে সেখানে তাঁর মৃত্যু হয়।

রামগড়ের এসডিপিও শশী প্রকাশ বলেন, “ওই ব্যক্তির গাড়িতে পাঁচ-ছ’কেজির মতো মাংস ছিল বলে প্রাথমিক তদন্তে জানা গিয়েছে। মাংসের ফরেনসিক টেস্ট হবে।” সন্ধ্যায় রাজ্যের ডিআইজি জানান, ঘটনাস্থল থেকে তাঁরা কিছু ছবি ও ভিডিও ফুটেজ জোগাড় করেছেন। তা দেখেই অপরাধীদের শনাক্ত করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন: গুজব গো-হত্যার, ঝাড়খণ্ডে ক্ষিপ্ত জনতার হাতে নিগৃহীত মুসলিম দুধ ব্যবসায়ী

উল্লেখ্য, দু’ দিন আগেই গত মঙ্গলবার রাতে গিরিডিতে উসমান নামে এক প্রৌঢ়কে গো-বধের ধুয়ো  তুলে গণধোলাই দেয় দুষ্কৃতীরা। তাঁর ঘর জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। রামগড়ের ঘটনার খবর পেয়ে আরজেডি নেতা লালুপ্রসাদ বলেন, “প্রধানমন্ত্রী মুখে যা-ই বলুন না, তাঁর প্ররোচনাতেই এ ধরনের ঘটনা ঘটছে।”

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here