কংগ্রেস-সঙ্গ দেওয়া, না-দেওয়া নিয়ে ‘শ্রেণি চরিত্রে’ মনোনিবেশ সিপিএমের

0
162
cpim

ওয়েবডেস্ক: বিজেপির থেকে অনেকটাই কম ‘বিপজ্জনক’ জাতীয় কংগ্রেস!

আগামী বুধবার হায়দরাবাদে শুরু হতে যাওয়া পার্টি কংগ্রেসে এমনটাই যুক্তি তুলে ধরার চেষ্টা চালাবে সিপিএমের একাংশ। আগামী ২০১৯-র লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি-আরএসএসের বিরুদ্ধে যৌথ শক্তি গড়ে তুলতে কংগ্রেসের সঙ্গে সমঝোতা করা হবে কি না, এমন প্রশ্নে সীতারাম ইয়েচুরি লবি এই মতেরই অবতারণা করতে চলেছেন বলে জানিয়েছেন এক পলিটব্যুরো সদস্য।

টানা তিন মাস ধরে জারি রয়েছে এই লম্বা বিতর্ক। কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকেও বামপন্থী মনোভাবাপন্ন রাজনৈতিক দলগুলিকে কাছে টেনে নেওয়ার প্রস্তাব নির্দ্বিধায় মেনে নিলেও কংগ্রেস প্রসঙ্গে ভোটাভুটি হয়েছে খোদ কলকাতাতেই বসে। সেখানেও প্রকাশ কারাত গোষ্ঠীর প্রভাব অব্যাহত থেকেছে। কিন্তু দলের নীচুতলার নেতা-কর্মীদের আবেগে ইতি টানা যায়নি এখনও। স্বাভাবিক ভাবেই ১৮-২২ এপ্রিল হায়দরাবাদের পার্টি কংগ্রেসে ফের নতুন করে উঠে আসছে সেই প্রসঙ্গই।

পশ্চিমবঙ্গে দলের নীচুতলার নেতা-কর্মীদের মনোভাব স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে রাজ্যের সাম্প্রতিক জেলা সম্মেলনগুলির মঞ্চেই। অধিকাংশ জেলা সম্মেলনেই সাম্প্রদায়িক শক্তিকে রুখতে কংগ্রেসের হাত ধরার পক্ষে জোরালো সওয়াল করেছেন প্রতিনিধিরা। কিন্তু সেখানেও দলের উচ্চ নেতৃত্বকে বলতে শোনা গিয়েছে, উপরের কথা না ভেবে স্থানীয় স্তরে মনোযোগ দিতে। তবে প্রবল হয়ে ওঠা এই বিষয়টি যে উচ্চ নেতৃত্ব ঝেড়ে ফেলতে পারছেন না, তা স্পষ্ট হতে চলেছে পার্টি কংগ্রেসের মঞ্চেই।

আরও পড়ুন: বিজেপি-বিরোধী জোটে কংগ্রেসের বিশ্বাসযোগ্যতা কমেছে, মনে করে সিপিএম

ওই পলিটব্যুরো সদস্যের মত, বিজেপি এবং কংগ্রেসকে মোটেই একই দৃষ্টিভঙ্গীতে বিচার করা সহজ হবে না। ২০০৪-এ প্রথম ইউপিএ সরকারকে বাইরে থেকে সমর্থন দিয়েছিল সিপিএম। কিন্তু পরমাণু চুক্তি নিয়ে সমর্থন তুলে নেওয়ার পরেও কংগ্রেসের সঙ্গে একাধিক বিষয়ে সহমত হতে হয়েছে বামপন্থীদের। বিশেষ করে মোদী জমানায় সংসদের অসংখ্য ইস্যুতে কংগ্রেসের সঙ্গে যৌথ বিরোধিতায় নেমেছে তারা। স্বাভাবিক ভাবেই কংগ্রেস এবং বিজেপির মধ্যে শ্রেণি চরিত্রের ফারক রয়েছে বিস্তর।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

loading...

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here