cpim

ওয়েবডেস্ক: আগামী লোকসভা নির্বাচনের রণকৌশল নির্মাণে বিহারে কয়েক কদম এগোল সিপিএম। সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরির বিহার সফরে প্রাথমিক ভাবে স্থির হয়ে গেল বিজেপি-বিরোধী জোটে সিপিএমের অবস্থান।

সিপিআই বরাবর সক্রিয় থাকলেও নয়ের দশক থেকেই বিহারের সংসদীয় রাজনীতিতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নিয়ে চলেছে বামপন্থী দলগুলি। বিশেষ করে সিপিআইএম এবং সিপিআই-এমএল (লিবারেশন) নিজেদের জনসমর্থনের ভিত শক্ত করার কাজ শুরু করেছিল তার আগে থেকেই। ২০০০ সালের কংগ্রেসের সঙ্গে আরজেডি গাঁটছড়া বাঁধার আগে সিপিএম এবং সিপিআই, উভয়ের সঙ্গেই নির্বাচনী সমঝোতা ছিল জনতা দলের। আবার ২০১৫ সালের বিহার বিধানসভা নির্বাচনে সিপিআই-এমএল (লিবারেশন)-এর তিনটি আসনে জয়লাভ উল্লেখ্যণীয় বিষয়।

এনডিএ শাসিত বিহার বিধানসভায় এই দল এখন আরজেডি-কংগ্রেস বিরোধী জোটেরই বিশেষ অংশ। বর্তমানে এনডিএ জোট শাসিত ওই রাজ্যে আগামী লোকসভা নির্বাচনে এই দুই বামপন্থী দলকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিচ্ছে অ-বিজেপি দলগুলি। সেই নিরিখে বিজেপি-বিরোধী মহাজোটে এই দুই দলের দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে একটা আগ্রহ ছিলই। এরই মাঝে বিহার সিপিএমের সম্পাদক সত্যনারায়ণ সিং দলের অবস্থান স্পষ্ট করে দিলেন।

সত্যনারায়ণ বলেন, আগামী লোকসভা ভোটে আসনবণ্টন বাদে জোটের ব্যাপারে একপ্রস্থ কথা হয়ে গিয়েছে আরজেডি সুপ্রিমো লালুপ্রসাদ যাদবের সঙ্গে। গত ৭ জুন আরজেডি নেতৃত্বের সঙ্গে প্রাথমিক আলোচনার পর স্থির হয়েছে বিজেপি-বিরোধী জোটে সিপিএম অংশ নেবে। এমনতি গত লোকসভা নির্বাচনেও বিহারের অধিকাংশ প্রার্থী দেয়নি সিপিএম। ফলে ওই সব আসনে নিজেদের প্রার্থী না দিয়ে বিজেপি-বিরোধী জোটের হয়ে প্রচারে নামলে আখেরে লাভ হবে জোটেরই। তবে এর জন্য নিজেদের পর্যাপ্ত সংখ্যক আসন জোট ছাড়ে কি না, সে বিষয়টিও নিশ্চিত করার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন