অবশেষে তুলে নেওয়া হল কাশ্মীরের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘ কারফিউ। হিজবুল নেতা বুরহান ওয়ানির মৃত্যু পর ‘ভূস্বর্গে’ উত্তেজনার জেরে গত ৯ জুলাই এই কারফিউ জারি হয়। ৫১ দিন পর আজ কাশ্মীর ১০ টি জেলা থেকে কারফিউ তুলে নেওয়া হয়েছে। তবে, দক্ষিণ কাশ্মীরের পুলওয়ামা এলাকায় এখনও চলছে ১৪৪ ধারা। পুরানো শ্রীনগরের মহারাজগঞ্জ ও নওহট্টা পুলিশ স্টেশনের আওতায় থাকা এলাকাগুলিতেও কারফিউ জারি রয়েছে। বুরহানের মৃত্যুর পর থেকে জম্মু-কাশ্মীরে লাগাতার অশান্তি শুরু হয়। এই অশান্তির জেরে প্রাণ যায় ৬৮ জন সাধারণ মনুষ ও ৩জন পুলিশ কর্মীর।

কাশ্মীরের মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি গত শনিবার দেখা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সঙ্গে। এর পর কেন্দ্র ঘোষণা করে সেপ্টেম্বর মাসের প্রথমে একটি সর্বদলীয় প্রতিনিধি দল কাশ্মীরের পরিস্থিতি সরেজমিনে খতিয়ে দেখবে। এই দলের নেতৃত্বে থাকবেন রাজনাথ সিং। বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন হুরিতয় কনফারেন্সের সঙ্গেও ওই প্রতিনিধি দলের বৈঠক হতে পারে।

গত সপ্তাহে রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন ন্যাশনাল কনফারেন্সের নেতা ওমর আবদুল্লা। তিনি দাবি তোলেন বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে আলোচনার।

প্রধানমন্ত্রী রবিবার ‘মন কী বাত’-এর ২৩তম সংস্করণে কাশ্মীর সমস্যা সমাধানে  ‘একতা’ এবং ‘মমতা’-কে হাতিয়ার করতে চান বলে জানিয়ে দেন। এর পর রবিবার রাত থেকে পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হওয়ায় কারফিউ তুলে নেওয়া হয়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here