EVMs

ওয়েবডেস্ক: ইভিএম-এ (ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন) কারচুপি করা যায়। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে যে সব ইভিএম ব্যবহার করা হয়েছিল, তাতে রিগিং করা হয়েছিল। এই বিস্ফোরক দাবি করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কর্মরত সাইবার বিশেষজ্ঞ সৈয়দ শুজা। শুজা আজ লন্ডনে ভিডিও কনফারেন্সিং-এর মাধ্যমে সাংবাদিক সম্মেলন করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং বিজেপির নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ আনেন এবং কী ভাবে ইভিএম হ্যাক করা যায় তা প্রদর্শনের মাধ্যমে বুঝিয়ে দেন। শুজাকে স্কাইপে-র মাধ্যমে স্ক্রিনে দেখা যায়, যদিও তাঁর মুখ ঢাকা ছিল।

এ দিকে শুজার অভিযোগের প্রত্যুত্তরে ভারতের নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ইভিএম নিশ্ছিদ্র। লন্ডনে সাংবাদিক সম্মেলন নিয়ে কী আইনি ব্যবস্থা নেওয়া যায়, তা কমিশন খতিয়ে দেখছে বলে জানানো হয়েছে।

সৈয়দ শুজা দাবি করেছেন, তিনি ইলেক্ট্রনিক কর্পোরেশন অব ইন্ডিয়ার সঙ্গে কাজ করেছেন এবং নির্বাচন কমিশনের ব্যবহৃত ইভিএম নকশা করার দায়িত্ব যাদের দেওয়া হয়েছিল, সেই টিমের সদস্য ছিলেন তিনি।

শুজা আরও দাবি করেছেন, এক সময়ের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গোপীনাথ মুন্ডে হ্যাকিং নিয়ে তাঁর সরকারের কুকর্ম ফাঁস করতে গিয়েছিলেন। তাই তাঁকে খুন করে দেওয়া হয়। প্রসঙ্গত, উল্লেখ করা যেতে পারে ২০১৪ সালের জুনে এক গাড়ি দুর্ঘটনায় মুন্ডে মারা যান।

আরও পড়ুন শুধুই কি সংগঠনকে জোরদার করা, না কি মোদীর ব্রিগেড বাতিল হওয়ার পেছনে রয়েছে অন্য কারণ?

সাইবার বিশেষজ্ঞ দাবি করেন, কংগ্রেস ও আপ-সহ ১০টির বেশি রাজনৈতিক দল তাঁর কাছে ইভিএম নিয়ে দরবার করেন। তিনি বলেন, শুধু বিজেপি নয়, সপা, বসপা, কংগ্রেস আর আপ-ও ইভিএম রিগিং-এর সঙ্গে জড়িত।

শুজা অভিযোগ করেন, তাঁর দলের কিছু সদস্যকে মেরে ফেলা হয়েছে। তাঁর ওপরেও আক্রমণ চালানো হয়েছে, তবে তিনি বেঁচে গিয়েছেন। তিনি বলেন, এক প্রখ্যাত ভারতীয় সাংবাদিকের সঙ্গে দেখা করে তিনি ইভিএম রিগিং-এর পুরো কাহিনি শুনিয়েছেন। নির্বাচন কমিশন ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলকে এ দিনের সাংবাদিক সম্মেলনে হাজির থাকার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল, কিন্তু শুধুমাত্র কংগ্রেস নেতা কপিল সিব্বল অনুষ্ঠানে যোগ দেন বলে সাইবার বিশেষজ্ঞ জানান।

লন্ডনে শুজার সাংবাদিক সম্মেলনের পরেই পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ইভিএম হ্যাক করা যায় বলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কর্মরত সাইবার বিশেষজ্ঞ যে দাবি করেছেন, তা নিয়ে বিরোধী দলগুলি শীঘ্রই নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে আলোচনা করবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here