সুপ্রিম কোর্টে শেষ অযোধ্যা মামলার শুনানি

0
Supreme Court
সুপ্রিম কোর্ট। প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: সুপ্রিম কোর্টে শেষ হল অযোধ্যার রামমন্দির-বাবরি মসজিদ মামলার শুনানি। এ দিন সর্বোচ্চ আদালত জানায়, ২৩ দিন পরে এই মামলার রায় ঘোষণা করা হবে।

বুধবার ৪০তম দৈনিক শুনানি নিয়ে উত্তেজনা ছিল তুঙ্গে। প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ-এর এজলাসে এই ঐতিহাসিক মামলার শুনানিতে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয় উভয়পক্ষের। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছায় যে প্রধান বিচারপতি এজলাস ছেড়ে বিচারপতিদের বেরিয়ে যাওয়ার হুঁশিয়ারি পর্যন্ত দেন। বিস্তারিত পড়ুন এখানে ক্লিক করে

Loading videos...

প্রধান বিচারপতি গত মঙ্গলবারই জানিয়েছিলেন, বুধবার সন্ধ্যা ৫টায় মামলার দৈনিক শুনানি শেষ হবে। তাঁর কথা মতোই এ দিন বিকেল ৪টের সময় শুনানি শেষ হয়। তবে রায়দান স্থগিত রাখে সুপ্রিম কোর্ট। পাশাপাশি জানানো হয়, ২৩ দিন পরে এই মামলার রায় ঘোষণা করা হবে।

উল্লেখ্য, এক সপ্তাহ ব্যাপী দশেরা উৎসবের বিরতির পরে গত সোমবার থেকে সুপ্রিম কোর্ট প্রতিদিন অযোধ্যা মামলার শুনানি আবার শুরু করে। বুধবার সেই শুনানির ৪০তম দিন। এর আগে মুসলিম পক্ষের কাছ থেকে শোনা যায়,গত ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত অযোধ্যার জমির ব্যাপারে কোনো দাবি জানায়নি হিন্দুরা। যে কারণে ১৯৯২ সালের ডিসেম্বর মাসে বাবরি মসজিদটি ভেঙে দেওয়ার পর মুসলিমরা সেটিকে পুনরায় সংস্কারের জন্য দাবি তুলেছিল।

অযোধ্যার বিতর্কিত জমি সংক্রান্ত ২০১০ সালে এলাহাবাদ হাইকোর্টের চারটি দেওয়ানি মামলার রায়ের বিরুদ্ধে শীর্ষ আদালতে ১৪টি আবেদন দায়ের করা হয়। এলাহাবাদ হাইকোর্ট বলেছিল, অযোধ্যার ২.৭৭ একর জমি সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড, নির্মোহী আখড়া এবং রাম লালা নামে তিনটি সংগঠনের মধ্যে সমানভাবে বিভক্ত করা উচিত।

অনেক হিন্দু বিশ্বাস করেন, ওই জমিটি ভগবান রামের জন্মস্থান ছিল এবং সেখানে একটি প্রাচীন মন্দিরের ধ্বংসাবশেষে একটি মসজিদ নির্মিত হয়েছিল। ঘটনাস্থলে থাকা ষোড়শ শতাব্দীর বাবরি মসজিদটি ১৯৯৯ সালের ডিসেম্বর মাসে চরমপন্থী নেতাকর্মীরা ভেঙে ফেলে। সেই মসজিদ ধ্বংসের রেশ ধরে দেশে দাঙ্গা ছড়ায়।

বিগত কয়েক বছরে বেশ কয়েকটি মধ্যস্থতার প্রচেষ্টা করা সত্ত্বেও কয়েক দশকের পুরনো এই বিরোধের সমাধানে পৌঁছাতে ব্যর্থ হয়েছে।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন