chandrasekhar azad
জেল থেকে বেরোনোর পরে সমরথকদের মধ্যে আজাদ। ছবি: দ্য ওয়্যার

ওয়েবডেস্ক: শুক্রবার সকালেই জেল থেকে ছাড়া পেয়েছেন। কিছুক্ষণের মধ্যেই বিজেপিকে ‘সাম্প্রদায়িক’ আখ্যা দিয়ে তাদের ভোট না দেওয়ার জন্য সাধারণ মানুষের কাছে আবেদন করলেন ভিম সেনার প্রধান চন্দ্রশেখর আজাদ।

এ দিন জেল থেকে বেরিয়েই সাংবাদিকদের আজাদ বলেন, “বিজেপিকে ভোট দেওয়া মানে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে অনিশ্চয়তার দিকে ঠেলে দেওয়া। আমি এখন জেল থেকে বেরিয়েছি। সারা দেশের মানুষের কাছে আমি আবেদন জানাব ২০১৯-এর নির্বাচনে কেউ যেন বিজেপিকে ভোট না দেয়।”

বিজেপিকে ঘুরিয়ে দু’মুখো সাপ আখ্যা দেন আজাদ। তিনি বলেন, “আমরা আমাদের আন্দোলন আরও এগিয়ে নিয়ে যাব। সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করে তাদের বলব, কাদের বিশ্বাস করা উচিত আর কাদের নয়।”

আরও পড়ুন বিজয় মাল্যর “মহাপলায়নের” নেপথ্যে ছিলেন কে? স্পষ্ট সিবিআই রিপোর্টে!

জেলে থাকাকালীন উত্তরপ্রদেশ পুলিশ তাঁর ওপরে যথেষ্ট অত্যাচার চালিয়েছে বলে জানান আজাদ। তিনি বলেন, “জেলে আমি অসুস্থ হয়ে পড়লেও আমার চিকিৎসা করা হয়নি। পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হয়নি। ঠিকঠাক খাবার দেওয়া হয়নি। আমাদের সঙ্গে ওরা যা করেছে, ২০১৯-এর পরে সেটা সুদে আসলে ফিরিয়ে দেওয়া হবে।”

আজাদের দাবি, ১ নভেম্বর তাঁকে ছাড়ার কথা থাকলেও সুপ্রিম কোর্টের ভর্ৎসনার ভয়েই উত্তরপ্রদেশ সরকার তাঁকে আগেভাগে ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে তাঁকে নতুন মামলায় পুনরায় ফাঁসিয়ে দেওয়া হবে বলেও মনে করেন আজাদ। তিনি বলেন, “আমি নিশ্চিত দশ দিনের মধ্যে নতুন মামলায় আমাকে ফাঁসিয়ে দেওয়া হবে।”

দলিতের ওপরে অত্যাচারের প্রতিবাদে বিজেপির বিরুদ্ধে আরও অনেক বিক্ষোভ সমাবেশ তাঁরা করবেন বলে জানিয়েছেন আজাদ। বিজেপি বিরোধী জোটের পক্ষেই সওয়াল করে তিনি বলেন, “২০১৯-এ কিছুতেই বিজেপিকে ক্ষমতায় আসতে দেব না আমরা।” তবে তাঁর নির্বাচনে দাঁড়ানোর কোনো ইচ্ছে নেই বলেও সাফ জানিয়েছেন এই দলিত নেতা।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন