bihar canal

ভাগলপুর: প্রায় চারশো কোটি টাকা খরচ করে তৈরি করা হয়েছিল বাঁধটি। বুধবার সেটির উদ্বোধন করার কথা ছিল বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের। কিন্তু তার আগেই বিপত্তি। জলের অতিরিক্ত চাপ সহ্য করতে না পেরে ভেঙে গেল বাঁধ। ঘটনায় মুখ পুড়েছে বিহার সরকারের।

প্রায় তিন দশক ধরে কাজ চলছে বটেশ্বরস্থান সেচ প্রকল্পের। ভাগলপুর জেলার কহলগাঁও থেকে শুরু হওয়া এই ৬০ কিমি খালটি তৈরি হলে বিহারের পাশাপাশি উপকৃত হবেন ঝাড়খণ্ডের কৃষকরাও। বিহারের ২১,৭০০ হেক্টর এবং ঝাড়খণ্ডের ৭,০০০ হেক্টর জমিতে সেচের জল দেওয়ার জন্য তৈরি হচ্ছে এই খাল।

ওই খাল বরাবর বাঁধটি তৈরি হচ্ছিল। বুধবারই সেটি উদ্বোধনের কথা ছিল মুখ্যমন্ত্রীর। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক ভাবে তার আগেই ভেঙে পড়ল বাঁধটি। ঘটনার জন্য বাতিল করা হয়েছে উদ্বোধনের অনুষ্ঠান। অতিরিক্ত জলের চাপ সহ্য করতে না পেরেই ভেঙে পড়েছে এই বাঁধ।

এই খালে বারোটা পাম্প লাগানোর কথা রয়েছে। সবক’টা পাম্প চালানো হলে ২৬০ কিউসেক হারে জল এসে পড়বে ওই খালে। কিন্তু মঙ্গলবার মাত্র পাঁচটা পাম্পের জলেই ভেঙে পড়ে ওই বাঁধ। এই প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত এক আধিকারিকের কথায়, “খালটা ভর্তি করার জন্য মাত্র পাঁচটা পাম্প চালানো হয়েছিল। কিন্তু হঠাৎ করে এত পরিমাণ জলের চাপ সহ্য করতে না পেরে ভেঙে পড়ে ওই বাঁধ।” বাঁধ ভাঙার ফলে আশেপাশের এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়ে।

এই ঘটনায় যে তাদের মুখ পুড়েছে সেটা কার্যত স্বীকার করে নেন ওই আধিকারিক। তাঁর কথায়, “ঘটনায় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে জলসম্পদ দফতর। এর জন্য দায়ী আমরা সকলেই।”

এ দিকে এই ঘটনায় রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছে বিরোধীরা। আরজেডি নেতা তেজস্বী যাদবের অভিযোগ, রাজ্য সরকারের দুর্নীতির ফলে ভেঙে গিয়েছে বাঁধ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here