নয়াদিল্লি: দিল্লির কুতুব মিনার (Qutab Minar)-এর মালিকানা মামলায় নিজেকে পক্ষ করার আবেদন নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন কুমার মহেন্দর ধওয়াজ প্রসাদ সিংহ। সোমবার তাঁর আবেদনের উপর রায় ঘোষণা স্থগিত রেখেছিল দিল্লির সাকেত আদালত। সূত্রের খবর, এ দিনই ফয়সলা শোনাতে পারেন আদালতের অতিরিক্ত জেলা জজ।

কেন পক্ষ হওয়ার আবেদন মহেন্দরের

নিজেকে তোমর রাজবংশের বংশধর বলে দাবি করে মহেন্দর আদালতে বলেছেন, যে জমির উপরে কুতুব মিনারটি রয়েছে, সেটির মালিকানা তাঁরই। বেসওয়ান পরিবারের কাছ থেকে রাজা নন্দ রামের বংশধর রাজা রোহিণী রমন ধওয়াজ প্রসাদ সিংহ জমিটি ভাড়া নিয়েছিলেন। ফলে পুজোর অধিকার নিয়ে হিন্দু সংগঠনের দায়ের করা মামলায় পক্ষ করা হোক তাঁকে। মিডিয়া রিপোর্টে প্রকাশ, মঙ্গলবার সাকেত আদালতের অতিরিক্ত জেলা জজ দীনেশ কুমার মহেন্দরের আর্জির উপর রায় ঘোষণা করবেন।

তবে আর্কিয়োলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়া (ASI) ইতিমধ্যেই মহেন্দরের দাবির বিরোধিতা করেছে। আদালতে তারা জানিয়েছে, মহেন্দরের দাবি সময়কাল উত্তীর্ণ। তাই তাঁর আবেদন খারিজ করা উচিত। এ ব্যাপারে মহেন্দরের পক্ষে উপস্থিত হয়ে আইনজীবী এমএল শর্মা আদালতে বলেন, “এএসআই নিজের উত্তর ব্যাখ্যা করেনি। তারা কী ভাবে এই সম্পত্তি দখল করেছিল, তা বিশদে জানায়নি। আমরা সেই সম্পত্তির অধিকার রক্ষা করতে চাই”।

কুতুব মিনার চত্বরে পুজো করার দাবি

প্রসঙ্গত, একাংশের দাবি, কুতুবুদ্দিন আইবক নয়, কুতুব মিনার তৈরি হয়েছিল রাজা বিক্রমাদিত্যের আমলে। বিশেষ করে, হিন্দু দেবতার বিগ্রহ উদ্ধার হওয়ার পর কিছু দিন ধরেই এই দাবি জোরালো হয়।

হিন্দু সংগঠনের দাবি, ২৭টি হিন্দু এবং জৈন মন্দির ভেঙে কুতুব মিনার তৈরি করা হয়েছিল। তাই কুতুব মিনার চত্বরে পুজো করার অনুমতি দেওয়া উচিত। হিন্দু সংগঠনের পক্ষ থেকে আদালতে একটি পিটিশন দাখিল করা হয়েছিল, সেটার উপরও শুনানি চলছে। আশা করা হচ্ছে, মহেন্দরের আবেদনের রায় ঘোষণার পর ওই আর্জির ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত নিতে পারে আদালত।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন