tree plant
প্রতিনিধিত্বমূলক ছবি

ওয়েবডেস্ক: তাঁর বিরুদ্ধে চলছিল বিদ্য়ুৎ চুরির ফৌজদারি মামলা। সেই মামলাই বন্ধের আশ্বাস দিয়ে অভিযুক্তকে সামাজিক কর্তব্য পালনে ৫০টি চারাগাছ লাগানোর নির্দেশ দিল দিল্লি হাইকোর্ট।

আদালত বলেছে, এক মাসের মধ্যে ওই ৫০টি গাছ রোপণ করতে হবে এবং তাঁর কার্যকলাপের যাবতীয় রিপোর্ট করতে হবে ডেপুটি কনজারভেটর অব ফরেস্ট (পশ্চিম)-কে। হাইকোর্ট বলে, নয়া দিল্লির বন্দেমাতরম মার্গের কেন্দ্রীয় রিজ রিজার্ভ ফরেস্ট এলাকার বুদ্ধ জয়ন্তী পার্কে ওই ৫০টি গাছ লাগানোর দায়িত্ব পালন করতে হবে ওই বিদ্যুৎ চোরকে।

এই মামলার শুনানিতে বিচারপতি সঞ্জীব সচদেবা জানান, গাছগুলিকে নার্সারি থেকে সংগ্রহ করা যেতে পারে। সেগুলি যেন সাড়ে তিন বছরের বেশি বয়সি না হয়। একই সঙ্গে গাছের উচ্চতায় ৬ ফুটের মতো হতে হবে। মাটির গুণাগুণ বিচার করেই গাছগুলিকে নির্বাচন করতে হবে। গাছগুলিকে নির্বাচনে সহায়তা করবেন বন আধিকারিক।

পুরো কার্যকলাপ সংক্রান্ত একটি এফিডেভিট করার নির্দেশও দিয়েছে আদালত। ওই বিদ্যুৎ চোর এবং বন আধিকারিক উভয়েই ওই হলফনামা দেবেন। যদি ভবিষ্যতে তাঁরা আদালতের নির্দেশ পালনে ব্যর্থ হন, তা হলে পুনরায় মামলা দায়ের হবে।

বিচারপতি সঞ্জীব সচদেবা বলেন, বন আধিকারিককে গাছের যত্ন ও পর্যবেক্ষণ নিশ্চিত করতে হবে এবং গাছের স্বাস্থ্য / অবস্থান প্রদর্শন করতে বৃক্ষরোপণের ছয় সপ্তাহ পরে তাজা ছবি-সহ তিনি একটি প্রতিবেদন দায়ের করবেন। এই আদেশের অনুলিপি সংশ্লিষ্ট ডিসিএফ (পশ্চিম)-কে পাঠাতে হবে।

প্রসঙ্গত, ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগ দায়ের করে বিদ্যুৎ বিভাগ। প্রমাণ হিসাবে হাজির করা হয় বেশ কয়েকটি উপকরণ। ওই ব্যক্তির দোকানের সামনের বিদ্যুতের খুঁটিতে ঝুলছিল একটি তার, যা দিয়ে দোকানে বেআইনি ভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহারের অভিযোগ দায়ের হয় তাঁর বিরুদ্ধে। এর পর বিদ্যুৎ আইনে তাঁকে অব্যাহতি দিতে ৫০টি চারাগাছ লাগানোর শাস্তি দেয় হাইকোর্ট।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন