দূষণ নিয়ন্ত্রণে অবশেষে কিছুটা সাফল্য দিল্লির

0
airpollution
বায়ুদূষণের প্রতীকী ছবি

নয়াদিল্লি: দূষণ নিয়ন্ত্রণে অবশেষে কিছুটা সাফল্যের মুখ দেখল দিল্লি। রাজধানীর দশেরা-পরবর্তী দূষণমাত্রা গত পাঁচ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ।

সাধারণত দিওয়ালিতে দিল্লির দূষণ মাত্রাছাড়া ভাবে বেড়ে যায়। কিন্তু দূষণের সূচনা হয় তার দিন কুড়ি আগে দশেরার দিন থেকেই। কারণ সেই দিন শহরের বিভিন্ন প্রান্তে রাবণের কুশপুতুল জ্বালানো হয়। সেই সঙ্গে আতসবাজির প্রদর্শনী তো থাকেই।

এ বারও সেই সবই হয়েছে। রাবণের কুশপুতুল পোড়ানো হয়েছে। কিন্তু গত পাঁচ বছরের মধ্যে দূষণের মাত্রা দিল্লিতে সব থেকে কম।

এর মূলত তিনটে কারণ রয়েছে বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। প্রথম কারণটি সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক। বর্ষা বিদায় না নেওয়ায় দিল্লিতে এখনও পুবালি হাওয়া দিচ্ছে। এর ফলে দূষণ অনেকটাই কম। দ্বিতীয় কারণ, সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং তৃতীয় কারণ, দূষণ নিয়ন্ত্রণে রাজ্য সরকারের পদক্ষেপ।

অনেকেই জানাচ্ছেন, এ বার রাজধানীর একাধিক জায়গায় ‘রাবণবধে’ বেশি আতসবাজি ব্যবহার করাই হয়নি। অনেক জায়গায় পরিবেশবান্ধব ‘গ্রিন-ক্র্যাকার’ ব্যবহার করা হয়। সে কারণেও দূষণ আগের থেকে অনেকটাই কমেছে।

এ ছাড়াও দূষণের কথা মাথায় রেখে এ বার আগে থেকেই তৈরি ছিল দিল্লি সরকার। আগাম বেশ কিছু পদক্ষেপও তারা করে ফেলেছিল।

দশেরা পেরিয়ে যাওয়ার পর এ বার দিল্লির কাছে পরীক্ষা দিওয়ালি। সেটা আরও বড়ো পরীক্ষা। দিওয়ালির দিন দিল্লির দূষণ মাত্রাতিরিক্তর থেকেও বেশি কিছু হয়ে যায়। যদিও সেই দূষণ মোকাবিলা করতে আগে থেকেই বিশেষ প্রকল্প ঘোষণা করে রেখেছে দিল্লি সরকার।

আরও পড়ুন বাংলাদেশের একমাত্র নোবেলজয়ী, মহম্মদ ইউনুসের বিরুদ্ধে জারি গ্রেফতারি পরোয়ানা

আগামী ১ থেকে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত দিল্লিতে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে ‘জোড়-বিজোড়’ প্রকল্প। অর্থাৎ এক দিন জোড় সংখ্যার গাড়ি রাস্তায় বেরোলে পরের দিন বেরোবে বেজোড় সংখ্যার গাড়ি। এ ভাবেই রাস্তায় গাড়ির সংখ্যা কমিয়ে দূষণ মোকাবিলায় প্রস্তুত দিল্লি।

------------------------------------------------
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.