জম্মু-কাশ্মীরে আসন পুনর্বিন্যাসের কাজ শেষ, চূড়ান্ত রিপোর্টেও বিতর্ক

0

শ্রীনগ: যেমনটা ভাবা হয়েছিল ঠিক সেটাই হল। জম্মু-কাশ্মীরের আসন পুনর্বিন্যাসের কাজ শেষ হতেই দেখা গেল যে জম্মু অঞ্চলে আসন অনেকটাই বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এর ফলে নতুন করে বিতর্কের জন্ম হয়েছে। বিরোধীদের দাবি জম্মু জয়ের মধ্যে দিয়ে গোটা কাশ্মীরকে শাসন করার স্বপ্ন দেখছে বিজেপি।

আসন পুনর্বিন্যাসের এই কাজের দায়িত্বে থাকা ‘ডিলিমিটেশন কমিশন’ তাদের রিপোর্ট কেন্দ্রের কাছে জমা দিয়েছে। রিপোর্টে জম্মু-কাশ্মীরের বিধানসভার মোট আসন ৮৩ থেকে বাড়িয়ে ৯০ করা হয়েছে। ছ’টি বেড়েছে হিন্দু অধ্যুষিত জম্মুতে, একটি সংখ্যালঘু কাশ্মীরে।

নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, প্রায় দু’দশক ধরে আসন পুনর্বিন্যাসের কাজ থমকে ছিল জম্মু-কাশ্মীরে। ২০১৮ সালে বিজেপি ও পিডিপি দলের জোট ভেঙে গেলে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হয় ভূস্বর্গে। ২০১৯ সালে বিজেপি দ্বিতীয় বার ক্ষমতায় জিতে আসার পরেই জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ ক্ষমতা প্রত্যাহার করে, রাজ্যের মর্যাদা কেড়ে নিয়ে সেটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করা হয়। আলাদা করা হয় লাদাখকে।

কেন্দ্র জানায়, আসন পুনর্বিন্যাসের ভিত্তিতে বিধানসভা ভোট হবে জম্মু-কাশ্মীরে। ২০২০-র মার্চে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি রঞ্জনা প্রকাশ দেশাইয়ের নেতৃত্বে তিন সদস্যের কমিশন গঠন করে কেন্দ্র। বাকি দুই সদস্য দেশের মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুশীল চন্দ্র ও জম্মু-কাশ্মীরের নির্বাচন কমিশনার কে কে শর্মা।

রিপোর্টে জম্মু-কাশ্মীর বিধানসভার মোট আসন ৮৩ থেকে বাড়িয়ে ৯০ করা হয়েছে। সাতটি আসনের মধ্যে ছ’টি বেড়েছে জম্মুতে (৩৭ থেকে ৪৩) এবং একটি কাশ্মীরে (৪৬ থেকে ৪৭)। কমিশন জানিয়েছে, ২০১১ সালের জনসংখ্যার ভিত্তিতেই আসন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। নতুন ব্যবস্থায় জম্মু-কাশ্মীরে যে পাঁচটি লোকসভা কেন্দ্র রয়েছে তার প্রত্যেকটিতে এখন থেকে ১৮টি করে বিধানসভা কেন্দ্র থাকবে। স্থানীয় রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিদের দাবি মাথায় রেখে বেশ কিছু আসনের নাম পাল্টানো হয়েছে। যেমন তানমার্গের নাম হয়েছে গুলমার্গ, জুনিমার হয়েছে জাদিবাল, শোনওয়ারের নাম হয়েছে লাল চক, কাঠুয়া (উত্তর)-এর নতুন নাম হয়েছে জাসরোটা।

কয়েক মাস আগেই কমিশন খসড়া রিপোর্ট প্রকাশ করার পর থেকেই ওই আসন পুনর্বিন্যাসের মাধমে বিজেপির সুবিধে করে দেওয়ার অভিযোগে সরব হন বিরোধীরা। চূড়ান্ত রিপোর্টের বিরোধিতা করে উপত্যকার দলগুলি নিয়ে গড়া গুপকর জোট জানিয়েছে, ‘‘এর ফলে কাশ্মীরে যাঁরা সংখ্যাগুরু, তাঁরা রাজনৈতিক সংখ্যালঘুতে পরিণত হলেন। পুরোটাই করা হয়েছে বিজেপিকে সুবিধা করে দেওয়ার জন্য।’’

বিরোধীদের মতে, এর ফলে জম্মু-কাশ্মীরের ৯০টি আসনের মধ্যে হিন্দু অধ্যুষিত জম্মুতেই সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যা জোগাড় করে নিতে সক্ষম হবে বিজেপি। তার ফলে উপত্যকায় একটি আসন না জিতলেও জম্মু-কাশ্মীর শাসন করতে সমস্যা হবে না নরেন্দ্র মোদীর দলের।

আরও পড়তে পারেন:

ইতিহাস গড়লেন প্রিয়ঙ্কা মোহিতে, প্রথম ভারতীয় মহিলা হিসাবে পাঁচটি আট হাজারি শৃঙ্গ জয়

হু বলল কোভিডে মৃত্যু হয়েছে ৪৭ লক্ষের, ভারত বলল বাস্তবের সঙ্গে মিল নেই

‘আমি রাহুল গান্ধীর সমকক্ষ নই’, আত্মবিশ্লেষণ প্রশান্ত কিশোরের

কলকাতার বৃষ্টিতে বর্ষার বৈশিষ্ট্য, সঙ্গী প্রবল বজ্রপাত

বাবার শেষ ইচ্ছাপূরণ করতে ইদগাহকে দেড় কোটির জমি দান করলেন দুই হিন্দু বোন

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন