এনআরসি-র নামে গণতন্ত্ৰকে হত্যা করা হচ্ছে, বললেন অসমের ৪০ জন বিদ্বজ্জন

রাজ্যে এনআরসি উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ে এক অস্বস্তিকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে।

0
প্রতীকী ছবি।

নিজস্ব প্রতিনিধি, গুয়াহাটি: অসমের ৪০ জন বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক, বিভিন্ন ক্ষেত্ৰের প্ৰতিনিধি রাজ্যে এনআরসি উদ্ভুত পরিস্থিতিতে সরকারের ভূমিকায় গভীর উদ্বেগ প্ৰকাশ করেছেন। তাঁদের অভিযোগ, অসমে গণতন্ত্ৰকে হত্যা করা হচ্ছে। ফোরাম ফর সোশ্যাল হারমোনির পক্ষে এই ৪০ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি অভিযোগ করেছেন, অসমে পুলিশ প্ৰশাসন নিরপেক্ষ ভাবে কাজ করছে না।

এর পাশাপাশি অসমে ডিটেনশন ক্যাম্পের নামে যে ভাবে মানুষকে হেনস্থা করা হচ্ছে তাতে গভীর উদ্বেগ প্ৰকাশ করেছেন বিশিষ্ট মানবাধিকার কৰ্মী তিস্তা শিতলবাদ।  

আরও পড়ুন অসমে নাগরিকপঞ্জির নতুন খসড়া তালিকা প্রকাশিত, বিপাকে আরও এক লক্ষ মানুষ

সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কারপ্ৰাপ্ত অরূপা পতঙ্গিয়া কলিতা বলেছেন, “অসমে প্ৰকৃত ভারতীয় নাগরিকদের প্রতি অমানবিক আচরণ করা হচ্ছে। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল আমরা সমৰ্থন করি না। দেশকে হিন্দুরাষ্ট্ৰ গঠনের দিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। বিশুদ্ধ এনআরসি প্ৰস্তুত হোক, তা আমরা চাই। কিন্তু এনআরসির নামে প্ৰকৃত ভারতীয়দের যে ভাবে হেনস্থা করা হচ্ছে তা সমৰ্থনযোগ্য নয়।”

ফোরামের পক্ষে হরকুমার গোস্বামী এবং অন্যরা গভীর উদ্বেগের সঙ্গে বলেছেন,  আগে ৪০ লক্ষ মানুষের নাম বাদ পড়েছে, এ বার লক্ষাধিক মানুষের নাম বাদ পড়ল। লক্ষ লক্ষ মানুষ রাষ্ট্ৰহীন নাগরিকে পরিণত হবে। তাদের ব্যাপারে সরকারের কোনো সদিচ্ছা লক্ষ করা যাচ্ছে না। সব থেকে বিস্ময়ের, যারা আপত্তি জানাল, তাদের কোনো পরিচয় নেই। আড়াল থেকে তারা আপত্তি দৰ্শাল লক্ষ লক্ষ মানুষের বিরুদ্ধে, তারা কিন্তু প্ৰকাশ্যে এল না। এই ৪০ জন বুদ্ধিজীবীর সঙ্গে রাজ্যের ধৰ্মীর জাতীয় ভাষিক সংখ্যালঘু সংগঠনগুলিও সহমত পোষণ করেছে। এর আগে মানবাধিকার কৰ্মী হৰ্ষ মন্দার রাজ্যের ডিটেনশন ক্যাম্পগুলির অবৰ্ণনীয় কথা তুলে ধরে সুপ্ৰিম কোৰ্টের কাছে সুবিচার প্ৰাৰ্থনা করেছিলেন।

রাষ্ট্ৰীয় স্বয়ং সেবক সংঘের এক মুখপাত্ৰ বলেন, এনআরসি সংশোধনের ক্ষেত্ৰে বহু ভুলভ্ৰান্তি হয়েছে। সুপ্ৰিম কোৰ্ট বলেছিল তালিকায় ১০ শতাংশ সংশোধন করা হবে কিন্তু তা করা হল না। তিনি আরও বলেন, প্ৰায় ১০ হাজার নথিপত্ৰ দাখিল করা হয়েছিল।  সে সব ভুলভ্ৰান্তি থাকা লিগাসি ডেটা। কিন্তু যে কারণেই হোক সুপ্ৰিম কোৰ্ট কোনো ব্যবস্থা গ্ৰহণ করল না। রাজ্যে ভাষিক এবং ধৰ্মীয় সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর মানুষ বিশেষ ভাবে শংকিত হয়ে আছে।

ইতিমধ্যে সিটিজেন ফর জাস্টিস ফোরামের তিস্তা শিতলাবাদ বলেছেন, এনআরসির নামে প্ৰকৃত ভারতীয় নাগরিকদের নানা ভাবে নিৰ্যাতন করা হচ্ছে। অসমে এনআরসি উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ে তিনি রবিবার সাংবাদিকদের কাছে মুখ খুলবেন বলে জানিয়েছেন।  

এ দিকে বৃহস্পতিবার ওদালগুড়িতে এনআরসির একজন কৰ্মীকে গ্ৰেফতার করা হয়েছে। এ ধরনের বহু ঘটনা ঘটে চলেছে। আগামী ৫ জুলাই থেকে অতিরিক্তি খসড়াছুটদের পুনরাবেদন প্ৰক্ৰিয়া শুরু হবে। ১১ জুলাই শুনানি। তাই রাজ্যে এনআরসি উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ে এক অস্বস্তিকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে।   

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here