নরেন্দ্র মোদীর ‘তুঘলকি ভুল’ ধরালেন সনিয়া গান্ধী

Sonia Gandhi

ওয়েবডেস্ক: কংগ্রেসের অন্তর্বর্তীকালীন সভানেত্রী সনিয়া গান্ধী নোটবাতিলের তৃতীয় বর্ষপূর্তিতে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে ‘কল্পনাশক্তির উপর নির্ভর করে প্রশাসন চালানোর সব থেকে বড়ো মডেল’ বলে অভিহিত করলেন। নোটবন্দির তৃতীয় বার্ষিকী উপলক্ষে এক বিবৃতিতে সনিয়া বলেন, “এটি ছিল মিথ্যা প্রচারের মাধ্যমে চালিত এক উদ্বেগমূলক ব্যবস্থা, যা দেশের নিরীহ ও আস্থাভাজন মানুষের নিরবচ্ছিন্ন ক্ষতি করে চলেছে”।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, “আজ নোটবন্দির ‘তুঘলকি ভুলে’র তৃতীয় বার্ষিকী, একটি স্বৈরাচারী সরকার দেশের মানুষের জীবন-জীবিকাকে আক্রমণ করার জন্য ওই সিদ্ধান্ত নিয়েছিল”।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ৮ নভেম্বর কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদী নেতৃত্বাধীন সরকার পুরনো ৫০০ এবং ১,০০০ টাকার নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে।

কংগ্রেস সভানেত্রী বলেন, এই ঘোষণার তিন বছর পরেও নোটবাতিলের কোনো উদ্দেশ্য সাধিত হয়নি। বিজেপি সরকার সুপ্রিম কোর্টকে বলেছিল যে ৩,০০,০০০ কোটি টাকার ‘কালো টাকা’ দেশে ফিরে আসবে এবং তা তুলে নেওয়া হবে। পরবর্তীকালে প্রধানমন্ত্রী নগদ টাকার ব্যবহার বাতিল করে ডিজিটাল অর্থনীতির উদ্দেশ্য যুক্ত করেন। তিন বছর পরে দেখা যাচ্ছে, প্রধানমন্ত্রী মোদী এই সমস্ত বিষয়গুলিতে উল্লেখযোগ্য ভাবে ব্যর্থ হয়েছেন। যে কারণে এ ব্যাপারে আর মুখ খোলেন না”।

কংগ্রেস প্রধান দাবি করেন, “রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া (আরবিআই) নিশ্চিত করেছে বাতিল হওয়া ৫০০ এবং ১,০০০ টাকার ৯৯.৩ শতাংশ পুনরায় ব্যাঙ্কে জমা করা হয়েছে। অন্য দিকে এগুলির মধ্যে জাল নোটের একটা নগণ্য এবং ছোটো অংশ ধরা পড়েছে। সরকারের নিজস্ব প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, সন্ত্রাসবাদ ও নকশাল কার্যকলাপগুলি নোটবন্দির পরে আরও বেড়েছে। সংসদে অর্থমন্ত্রীর মতে, নোটবন্দি-পূর্ব পরিস্থিতির থেকে এখন প্রচলিত মুদ্রায় লেনদেন ২২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে”।

সনিয়া এ দিন দাবি করেন, নোটবন্দিতে সরকারের কোন উদ্দেশ্য সাধিত হয়েছে, সেটা সরকারি ভাবেই প্রকাশ করা হোক। তাঁর কথায়, “নোটবাতিল কী সাফল্য অর্জন করেছে? এর পরিবর্তে যা হয়েছিল তা হল দেশ থেকে এক কোটিরও বেশি চাকরি মুছে ফেলা, বেকারত্বের হারকে ৪৫ বছরের উঁচুতে নিয়ে যাওয়া এবং ভারতকে আন্তর্জাতিক রেটিংয়ের স্থিতিশীল স্থান থেকে নেতিবাচক দিকে টেনে নিয়ে যাওয়া”।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.