বেঙ্গালুরু: বদলি করা হলেও দমানো যাচ্ছে না ডিআইজি রূপাকে। শশীকলাকে নিয়ে তাঁর যে রিপোর্টটি পুরো কর্নাটক বা তামিলনাড়ু ছাড়িয়ে, দেশের রাজনীতিতে হৈচৈ ফেলে দিয়েছে, সেই রিপোর্টের পক্ষেই তিনি দাঁড়াচ্ছেন বলে মন্তব্য করলেন রূপা।

আরও পড়ুন: জেলে শশীকলার এলাহি রান্নাঘরের খবর প্রকাশ্যে আনা কর্নাটকের সেই কারা অফিসার বদলি

বদলি হওয়ার ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে তিনি বলেন, “আমি আমার রিপোর্টের পক্ষেই দাঁড়াচ্ছি। আমি যা লিখেছি সব কিছুর প্রমাণ রয়েছে।” তিনি আরও বলেছেন যে বদলি করার পরে তিনি মানুষের যে সমর্থন পেয়েছেন তাতে তিনি অভিভূত।

প্রসঙ্গত জেলের অভ্যন্তরীণ খবর এ রকম ভাবে প্রকাশ্যে আনার অভিযোগে সোমবারই রূপাকে ট্র্যাফিক দফতরে বদলি করে কর্নাটক সরকার।

কী অভিযোগ শশীকলার বিরুদ্ধে?

নিজের জমা দেওয়া রিপোর্টে রূপা অভিযোগ করেছিলেন আর পাঁচ জন সাধারণ বন্দির সঙ্গেই শশীকলাকে রাখার ব্যবস্থা করা হলেও, তিনি জেলে রানির হালে রয়েছেন।

আরও পড়ুন: জেলে শশীকলার ২ কোটির রান্নাঘর, ডিজির বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ডিআইজির

জেলে তাঁর জন্য ব্যবস্থা করা হয়েছে একটি পৃথক রান্নাঘর, আরামদায়ক বিছানা, ফ্ল্যাট টিভি। সব থেকে চাঞ্চল্যকর হল, দর্শনার্থীদের সঙ্গে দেখা করার জন্য একটি আলাদা ‘কনফারেন্স রুম’-এর ব্যবস্থাও করা হয়েছে। সেখানে একটি টেবিল ছাড়াও রয়েছে ঘুরন্ত চেয়ার।

তাঁর রিপোর্টে রূপা জানিয়েছেন, গত ১১৭ দিনে ৮১ জন দর্শনার্থীর সঙ্গে দেখা করেছেন শশীকলা, অথচ কারাগারের নিয়ম হল প্রতি পনেরো দিনে এক জন করে দর্শনার্থী দেখা করতে পারেন। তাঁর আরও অভিযোগ, দর্শনার্থীদের দেখা করার সময় পেরিয়ে যাওয়ার পরেই বেশির ভাগ তাঁর সঙ্গে দেখা করতে আসতেন।

শশীকলার প্রতি এই বিশেষ খাতিরের জন্য দু’কোটি টাকা খরচ হয়েছে বলে ডিজিকে জমা দেওয়া রিপোর্টে অভিযোগ করেছিলেন রূপা।

 

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন