আমরা কি সত্যিই করোনা মহামারির শেষ পর্যায়ের কাছাকাছি?

0
প্রতীকী ছবি: pe.com/TANYA SPIEGEL-এর সৌজন্যে

কলকাতা: দু’বছরেরও বেশি সময় ধরে তাড়া করে বেড়াচ্ছে করোনা উদ্বেগ (কারও কারও মতে আতংক)। কখনও রূপ বদলে নতুন ঢেউ, কখনও সংক্রমণের নতুন চুড়ো আবার কখনো দৈনিক সংক্রমণে আশাব্যঞ্জক ইঙ্গিত। বিধিনিষেধ, সুবিধা মতো শিথিলতা- এ ভাবেই কেটে যাচ্ছে দিনগুলো। এখন তাবড় বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গতিবিধি দেখে মনে হচ্ছে, অতিমারি অস্ত গিয়ে কোভিড এ বার স্থানীয় রোগের আকার নিতে চলেছে। সত্যিই কি তাই? না কি আমরা নিজেরাই এই ভাইরাসকে সঙ্গে নিয়ে বাঁচার পথটা তৈরি করে ফেলছি?

ক’দিন আগেই কেন্দ্রীয় সরকারের গবেষক সংস্থা জানায়, কোভিড ১৯-এর ওমিক্রন রূপ ভারতে গোষ্ঠী সংক্রমণের পর্যায়ে রয়েছে এবং দেশের বেশ কয়েকটি মেট্রো শহরে এর সংক্রমণ ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়েছে। সেখান থেকেই একাংশের ধারণা, দৈনিক সংক্রমণ সর্বোচ্চ চুড়োয় পৌঁছে যাওয়ার পর ফের তা খাদে নামবে।

গত ২৩ জানুয়ারি কেন্দ্রের এই ঘোষণার কয়েক সপ্তাহ আগেই সাউথ আফ্রিকার একটি গবেষণার ফলাফলে বলা হয়, কোভিড মহামারির তীব্র পর্যায়ে এ বার দাঁড়ি পড়তে চলেছে। সমীক্ষার উপসংহারে বলা হয়েছে, “কোভিড অতিমারির শেষের একটি পর্যায় হতে পারে ওমিক্রন সংক্রমণ। এ ভাবেই যা স্থানীয় পর্যায়ের রোগের আকার ধারণ করতে পারে কোভিড”।

তবে এ সবই নির্দিষ্ট একটা সময়ে গবেষণা থেকে প্রাপ্ত তথ্যের উপর নির্ভর করে ফলাফল। গত দু’বছর ধরে করোনাকে চিনতে হাজারও গবেষণা হয়েছে। ভবিষ্যদ্বাণীও কম হয়নি। সাময়িক ভাবে সে সব দৃষ্টি আকর্ষণ করলেও পরবর্তীতে তা চলে গিয়েছে বিস্মৃতির অতলে। চমকে দেওয়া কিছু খবর হয়তো আশংকার আবহে আমাদের মনোযোগ আকর্ষণ করে নেয়। কিন্তু তা নিছকই ক্ষণস্থায়ী। করোনা বা এই ভাইরাসের একের পর এক রূপ ছড়িয়ে পড়া, গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হওয়া, দৈনিক সংক্রমণ শিখরে পৌঁছানো এবং তা ফের নীচে নেমে আসার ঘটনা একাধিক বার ঘটেছে।

ফলে আশা-প্রত্যাশার সঙ্গেই চিন্তা-দু:শ্চিন্তাও পিছু ছাড়েনি। করোনা এখন আমাদের বেশিরভাগের শরীরের কাছেই অপরিচিত নয়। এক বার, দু’বার এমনকী বহু বার আক্রান্ত হয়েছেন অনেকেই। ফলে চেনা শত্রুর সঙ্গে লড়াই অথবা মানিয়ে নেওয়ার কৌশল আমাদের শরীরের পক্ষেও অনেকটা সহজ এখন।

আমরা তো জন্ম থেকেই রোগের বিরুদ্ধে লড়তে শিখেছি। কোন রোগের কী ঝুঁকি, সুস্থ হওয়ার উপায় কী, কী ভাবে নিজেকে রক্ষা করতে হয়, এগুলো নতুন কোনো বিষয় নয়। করোনার চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি যেহেতু গোটা বিশ্ব, তাই এর প্রতিরোধে সম্মিলিত শক্তি অথবা প্রাকৃতিক অগ্রগতিও যথেষ্ট হওয়ার কথা। আগামীতে যদি এ ভাবেই এগোতে হয়, তবে কি ভাইরাসের সঙ্গে মানিয়ে নিয়েই চলতে শিখছে আমাদের শরীর? আর পাঁচটা অসুখের দলেই কোভিডকে ফেলে দেওয়ার মতো সময় কি এ বার আসতে চলেছে? আপনি কী মনে করেন, লিখুন কমেন্ট বক্সে…

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন