মুম্বই: মদ্যপ অবস্থায় কোনও মহিলা যৌন সম্পর্কে  সম্মতি দিলেও সে ক্ষেত্রে মহিলার সিদ্ধান্তকে ‘মুক্ত’ এবং ‘সচেতন’ হিসেবে গ্রাহ্য করা যাবে না। অতএব মদ্যপ মহিলার সম্মতিকে বৈধ হিসেবে ধরা হবে না, মামলার শুনানির সময় ধর্ষণের অজুহাত হিসেবেও ওই সম্মতির কোনও মূল্য থাকবে না। রায় দিল বম্বে হাইকোর্ট। 

আদালত জানিয়েছে, যৌন মিলনের সময় কোনও মহিলা যদি একবারও ‘না’ বলে থাকেন, ধরে নেওয়া যেতে পারে, ওই মহিলা যৌন সম্পর্কে অনিচ্ছুক। ‘মুক্ত এবং স্পষ্ট’ হলে, তবেই তা সম্মতি হিসেবে গ্রাহ্য হবে। বিচারপতি মৃদুলা ভাটকর এই প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, “ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৫ ধারায় ‘মহিলার সম্মতি ছাড়া’ এই শব্দগুলির তাৎপর্য ব্যাপক। সব সম্মতিকেই বৈধ বলা যায় না। নীরবতা অথবা অনিশ্চয়তাকে সম্মতির আওতায় ফেলা যায় না”।

পুনের এক মহিলাকে গণধর্ষণের অভিযোগ ওঠে তাঁর সহকর্মী এবং দুই বন্ধুর বিরুদ্ধে। সেই মামলার শুনানি চলাকালীন এই রায় দেন বিচারপতি মৃদুলা ভাটকর। অভিযুক্তরা দাবি করেন, ঘটনার দিন মহিলা মদ্যপ অবস্থায় সংজ্ঞা হারালে তাঁকে এক বন্ধুর ফ্ল্যাটে নিয়ে যাওয়া হয়।  

এই প্রসঙ্গে বিচারপতি ভাটকরের মত, “অভিযোগকারিণী নিজের মদ্যপ অবস্থার কথা স্বীকার না করলেও তাঁর সব অভিযোগকে মিথ্যে বলা যায় না। মহিলার ধর্ষণ পরবর্তী শারীরিক এবং মানসিক অবস্থা থেকে অনুমান করা যায়, যৌন মিলনে তাঁর কোনও সম্মতি ছিল না”। এই কারণে অভিযুক্তদের জামিনের আর্জি খারিজ করে দেয় আদালত।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন