ওয়েবডেস্ক: এক বার নয়, দু’ বার নয়, পর পর ১৯ বার দুলে উঠেছে মাটি। আর তাতেই তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়েছে আন্দামান-নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে। ফিরে এসেছে ২০০৪-এর ভয়বাহ সুনামির স্মৃতি। এই কম্পনগুলি থেকে সুনামি উৎপন্ন হওয়ার কোনো আশঙ্কা না থাকলেও, এটা কোনো বড়ো ভূমিকম্পের আগাম বার্তা কি না, সেই প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছে মানুষের মধ্যে।

শুরুটা হয়েছে সোমবার ভোর ৫:১৪ মিনিটে। তখন ৪.৯ মাত্রার একটি কম্পনে কেঁপে ওঠে নিকোবর দীপপুঞ্জ। এর পরের দু’ ঘণ্টাতেই আরও আটটা কম্পন হয়। সেই কম্পন এখনও থামেনি। এই ১৯ কম্পনের মধ্যে ১৫টা কম্পনের মাত্রা ছিল সাড়ে চার থেকে পাঁচের মধ্যে। বাকি চারটে কম্পন ৫-এর বেশি মাত্রার। দুপুর ১:৪০-এও একটা কম্পন অনুভূত হয়েছে। সাড়ে পাঁচ মাত্রার সেই কম্পন এখনও পর্যন্ত সব থেকে জোরালো।

আরও পড়ুন ভয়াবহ আগুনে পুড়ে ছাই ময়দানের শতাব্দীপ্রাচীন ক্লাব

ভূমিকম্পপ্রবণ অঞ্চল হওয়ার পরে আন্দামান-নিকোবরে সপ্তাহে একটা করে হালকা কম্পন অস্বাভাবিক কিছু নয়। কিন্তু এ দিন সকাল থেকে যে ভাবে কম্পনের লাইন লেগে গিয়েছে, তাতে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক দেখা গিয়েছে। সব থেকে বেশি আতঙ্কগ্রস্ত আন্দামানের বাসিন্দারা।

এটা যদিও প্রমাণিত সত্য নয়, যে এ ভাবে কম্পনের লাইন, কোনো ভয়বাহ কম্পনের পূর্বাভাস, কিন্তু এই ধরনের নিদর্শন রয়েছে যখন ছোটোখাটো কম্পনের পরেই হানা দিয়েছে বড়ো কম্পন। তবে এই কম্পন আন্দামানের মূল ভূখণ্ড থেকে দূরে হওয়ায়, এখনও কোনো ক্ষয়খতির খবর নেই। সাধারণ সমুদ্রের নীচে সাত মাত্রার কম কম্পন হলে সুনামি হওয়ারও কোনো সম্ভবনা থাকে না। তাই এই কম্পনগুলি থেকে সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাস লক্ষ  করা যায়নি।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন