ECI

নয়াদিল্লি: ঠিক ছিল সাড়ে বারোটায় নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা করবে কমিশন। কিন্তু তার আড়াই ঘণ্টা পরে সাংবাদিক বৈঠক করে কমিশন জানাল ৫ রাজ্যের ভোটের নির্ঘণ্ট।

কমিশন জানিয়েছে, ছত্তীসগঢ়ে ১২ এবং ২০ নভেম্বর ভোট হবে। ২৮ নভেম্বর ভোট হবে মধ্যপ্রদেশ এবং মিজোরামে। রাজস্থান এবং তেলঙ্গানায় ভোট হবে ৭ ডিসেম্বর। ১১ ডিসেম্বর ভোট গণনা হবে বলে জানিয়ে দিয়েছে কমিশন। শনিবার থেকেই সব রাজ্যে নির্বাচনী বিধি লাগু হয়ে যাবে বলে জানিয়েছে কমিশন।

এ দিন অবশ্য শুরুতেই একপ্রস্থ বিতর্ক হয়ে যায় নির্বাচন কমিশনের দিনক্ষণ ঘোষণা করার সময় নিয়ে। ঠিক ছিল সাড়ে বারোটায় কমিশন সাংবাদিক সম্মেলন করবে, এ দিকে রাজস্থানের অজমেঢ়ে দুপুর একটায় সভা ছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর। কংগ্রেসের অভিযোগ, কমিশন ইচ্ছে করেই সাংবাদিক সম্মেলন পিছিয়ে দিয়েছে যাতে মোদী চাইলে রাজস্থানে কিছু প্রকল্পের ঘোষণা করতে পারেন। যদিও কংগ্রেসের এই অভিযোগ খারিজ করে দিয়েছে কমিশন। প্রযুক্তিগত ত্রুটির ফলে দেরিই হয়েছে বলে দাবি করেন মুখ্য নির্বাচনী কমিশনার ও পি রাওয়াত।

আরও পড়ুন ব্রিগেড সমাবেশ নিয়ে বড়োসড়ো সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললেন তৃণমূলনেত্রী

মধ্যপ্রদেশ বিধানসভায় ২৩০টি আসন। ২০১৩ সালের ভোটে বিজেপি একাই জিতে নিয়েছিল ১৬৫টি। কংগ্রেস পেয়েছিল ৫৮টি আসন। অন্যান্য ৭। রাজস্থানে ২০০ আসনের মধ্যে ১৬৩টিতে জিতে ক্ষমতায় এসেছিল বিজেপি। কংগ্রেস পেয়েছিল মাত্র ২১টি আসন। ১৬টি আসন ছিল অন্যান্যদের দখলে। ছত্তীসগঢ়ে ৯০ আসনের মধ্যে ৪৯ আসনে জিতেছিল বিজেপি। কংগ্রেস পায় ৩৯টি আসন। অন্যান্য ২।

কিন্তু এ বার প্রাথমিক সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে তিন রাজ্যেই ক্ষমতা দখল করতে পারে কংগ্রেস। ঠিক সেই কারণেই সামনের বছরের লোকসভা নির্বাচনের আগে এটাকেই সেমিফাইনাল হিসেবে দেখছে কংগ্রেস, বিজেপি-সহ সব দলই।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন