rail-budget

নয়াদিল্লি : মাঝে মাত্র একটি দিন। তার পরই সব জল্পনার অবসান করে ঘোষণা করা হবে কেন্দ্রীয় বাজেট ২০১৮। ২০১৭ সাল থেকে নিয়ম বদলে রেল বাজেটও কেন্দ্রীয় বাজেটের সঙ্গেই প্রকাশ করা হচ্ছে। আপামর দেশবাসী রেলে বাজেটের দিকে তাকিয়ে। বিশেষত বিগত অর্থবর্ষে বেশ কয়েকটি রেল দুর্ঘটনার পর রেলের নিরাপত্তার সম্পর্কে কী ব্যবস্থা নিতে চলেছে মন্ত্রক সে বিষয়ে আগ্রহ চরমে।

১) তাই প্রাথমিক ভাবে আশা করা হচ্ছে নিরাপত্তার স্বার্থে বেশ কিছু ব্যবস্থা আনা হবে। পরিবর্তন করা হবে ট্রেন আর স্টেশনের পরিকাঠামোর। ইতিমধ্যেই জিপিএস ব্যবস্থা চালুর কথা চিন্তা করেছে রেলমন্ত্রক। সঙ্গে রেললাইনের ওপর  নজরদারি চালানোর জন্য ড্রোন নামানোর কথাও ভাবছে মন্ত্রক।

২) তার পরই যে বিষয়টি মাথায় আসে সেটি হল রেলের খাবার। ট্রেনে সরবরাহ করা খাবারে টিকিটিকি থেকে আরশোলা সব কিছু নিয়েই তোলপাড় হয়েছে দেশ। তাই এ বার রেলের খাবার, পরিচ্ছন্নতা, টয়লেট এই বিষয়গুলির জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। সে দিক থেকে ট্রেনে বায়োটয়লেট, উচ্চমানের আসনের ব্যবস্থা, স্বাস্থ্যকর আর বিশুদ্ধ খাবারের ব্যবস্থা ইত্যাদিও থাকতে পারে রেলের আগামী দিনের পরিকল্পনাগুলির মধ্যে।

আরও পড়ুন : কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীরা বঞ্চিত হতে পারেন বর্ধিত বেতনের বকেয়া থেকে

৩) এর পর যে বিষয়টি সামনে আসে, তা হল ট্রেনের গতি বৃদ্ধি। নির্দিষ্ট সময়ের থেকে অনেকটা দেরিতে গন্তব্যে পৌঁছোনো আপাতত রেল পরিবহনের একটা সাধারণ নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে। সে দিকে নজর রেখেই দেশের চারটি মহানগরীর জন্য বিশেষ ধরনের নতুন ‘ট্রেন ১৮’ আর ‘ট্রেন ২০’ নামানোর কথা ঘোষণা করেছে রেলমন্ত্রক। এগুলি নামানো হবে রাজধানী আর শতাব্দীর পরিবর্তে। এতে থাকবে উন্নত প্রযুক্তি। সঙ্গে বেশি পরিমাণ যাত্রীও পরিবহন করা যাবে। কারণ এতে থাকবে অতিরিক্ত কোচ।

৪) আর কোন বিষয়ে পরিবর্তন আনা দরকার এই বাজেটের মাধ্যমে? সে ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টমহল মনে করছে, সিগন্যালিং ব্যবস্থার পরিবর্তন খুবই জরুরি। তাতে দুর্ঘটনার হার যেমন কমবে, তেমনই বাড়বে গতিও। স্বয়ংক্রিয় সিগন্যালিং ব্যবস্থা প্রবর্তনের বিষয়টিও উঠে আসতে পারে বাজেটে। হিসেব বলছে গোটা সিগন্যালিং ব্যবস্থাটা নতুন পরিকাঠামোয় মুড়ে ফেলতে খরচ হবে ৭৮ হাজার কোটি টাকা।

৫) সব শেষে টিকিটের দাম বাড়বে না কমবে, এই বিষয়টি অনেকটাই নির্ভর করছে সরকারের নির্বাচনী নীতির ওপর। ২০১৯ সালের নির্বাচনের আগে দেশবাসীকে জনমোহিনী বাজেট উপহার দিতে দাম বাড়বে না কমবে সেটা তো সময় বলবে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here