পালিয়ে বেড়ানো বহিষ্কৃত বিজেপি নেতা দয়াশঙ্কর ধৃত বিহারে

0

দলিত নেত্রী মায়াবতী সম্পর্কে কু-মন্তব্য করে দল থেকে বিতাড়িত বিজেপি নেতা দয়াশঙ্কর সিং অবশেষে ধরা পড়লেন বিহারে।

লখনউ পুলিশ এবং বিহারের স্পেশ্যাল টাস্ক ফোর্স-এর একটি যৌথ বাহিনী শুক্রবার দুপুরে বক্সারের সুগার মিল কলোনি থেকে দয়াশঙ্করকে গ্রেফতার করে। লখনউ পুলিশের ডিআইজি আর কে এস রাঠোর জানান, তিনি গ্রেফতারি এড়াতে পালিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছিলেন। শেষ পর্যন্ত সম্পর্কে গোপন খবর পেয়ে তাঁকে বক্সার থেকে ধরা সম্ভব হল। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, দয়াশঙ্করকে বিহারের স্থানীয় আদালতে তোলা হবে। তার পর ট্রানজিট রিম্যান্ডে লখনউয়ে আনা হবে।

মায়াবতী সম্পর্কে নিন্দাসূচক মন্তব্য করার পর ২০ জুলাই দয়াশঙ্করের বিরুদ্ধে হজরতগঞ্জ থানায় তফশিলি জাতি ও তফশিলি উপজাতি (অত্যাচার প্রতিরোধ) আইন মোতাবেক এফআইআর করা হয়। তার পর থেকেই দয়াশঙ্কর বেপাত্তা ছিলেন।

আদতে দয়াশঙ্কর বক্সারেরই মানুষ। শৈশব কেটেছে বক্সারে। পড়াশোনা উত্তরপ্রদেশে। রাজনীতির জগতে প্রবেশ সেখানেই। দয়াশঙ্কর উত্তরপ্রদেশ বিজেপির সহ সভাপতি করার হওয়ার দিনই মায়াবতী সম্পর্কে কুরুচিকর মন্তব্য করেন। আগুনে ঘি পড়ে। উত্তেজিত মায়াবতী সংসদে সরকারকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, দয়াশঙ্করের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়া হলে দলিত ও তাঁর জাতের মানুষজন প্রতিবাদে মুখর হয়ে উঠবে। উল্লেখ্য, উত্তরপ্রদেশের জনসংখ্যার ২১ শতাংশ দলিত। বিজেপি প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই দয়াশঙ্করকে দল থেকে বহিষ্কার করে। এতে অবশ্য সন্তুষ্ট হননি মায়াবতী। বলেন, তাঁর দল দয়াশঙ্করের বিরুদ্ধে যে এফআইআর করেছে, তা বিজেপিরই করা উচিত ছিল।              

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন