social media

ওয়েবডেস্ক: স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ? না কি আদতে ইউজারের সুবিধা? ঠিক কোন দিকটায় জোর দিচ্ছে ফেসবুক, টুইটারের এই নয়া নীতি?

বিতর্ক স্বাভাবিক ভাবেই থাকবে বিষয়টা নিয়ে। কিন্তু জনপ্রিয় এই দুই সোশ্যাল মিডিয়া সে সবে পাত্তা দিতে নারাজ। লোকহিতার্থেই না কি তারা এবার হস্তক্ষেপ করছে ইউজারের স্বাধীনতায়। বেছে দিচ্ছে, ঠিক কী কী পোস্ট করা যাবে তাদের মাধ্যমে। অন্তত সে রকমই দাবি করছে সংস্থা।

ফেসবুক জানিয়েছে সরাসরি, ইউজারের স্বাধীনতা খর্ব করার কোনো ইচ্ছা তাদের নেই। কিন্তু জনপ্রিয় এই সোশ্যাল মিডিয়ার সঙ্গে প্রায় সারা বিশ্ব জড়িত বলে অনেক ইউজার সেই সুবিধার অপব্যবহার করেন। এমন সব জিনিস পোস্ট করেন, যা অন্যের চিন্তাধারার দুর্বল জায়গায় আঘাত করে নিজের সুবিধা তোলে। এ ধরনের পোস্টকে ফেসবুক তার পরিভাষায় বলে থাকে ‘এনগেজমেন্ট বেট’।

খেয়াল না করে আপনার উপায় নেই- হামেশাই এমন সব পোস্ট এসে পড়ে আপনার ওয়ালে। তারা আদতে ভিক্ষা চায়- লাইক, শেয়ার, কমেন্টের। কিন্তু সে সব পোস্টে কাকুতি-মিনতি থাকে না। বরং প্রকারান্তরে আপনার ভাবাবেগকে ব্যবহার করে সেই সব পোস্ট। যেমন, নানা দেব-দেবীর ছবির পোস্ট, সঙ্গে লেখা এটা শেয়ার না করলে অমঙ্গল হবে! অথবা, কুকুর ভালো না বিড়াল- সেই মর্মে লাইক চাওয়া! ফেসবুক জানিয়েছে, এবার থেকে এ ধরনের পোস্ট ব্লক করে দেওয়া হবে। আপাতত তা পোস্ট হিসাবে না রেখে পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে নিউজ ফিড-এ। মানে, এটা সতর্কীকরণ আর কী! ইউজার বুঝলে ভালো, না বুঝলে তখন পোস্ট ব্লক করে দেওয়া হবে।

পাশাপাশি, টুইটার জোর দিচ্ছে ছবি ব্লক করার জায়গায়। বলছে, এমন সব ছবি কোনো ভাবেই পোস্ট করা যাবে না যার সঙ্গে গণ-ঘৃণার প্রসঙ্গ জড়িয়ে আছে। এই প্রসঙ্গে উদাহরণ হিসাবে টুইটার তুলে ধরেছে অ্যাডলফ হিটলারের স্বস্তিক চিহ্নের কথা। স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, হিটলারের স্বস্তিক চিহ্ন কোনো পোস্টে থাকলেই তা ব্লক করে দেওয়া হবে। তবে শুধু এটুকুই নয়, এ ধরনের সব পোস্টের উপরেই নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সংস্থা। তা সেই সব চিহ্ন বা ছবির ঐতিহাসিক গুরুত্ব যা-ই থাক না কেন!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here