Nagerbazar

কলকাতা: গান্ধী জয়ন্তীর সকালে নাগেরবাজারের কাজিপাড়ায় বোমা বিস্ফোরণে উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য। ওই এলাকায় বিস্ফোরণ ঘটা বোমাটি রাখা ছিল বস্তায়। শুধু তাই নয়, শক্ত করে আটকানো ওই বোমাটি আদতে সাধারণ সকেট বোমার থেকে অনেকটাই শক্তিশালী। সকেট বোমার ভিতরে ছিল লোহার স্প্লিন্টার। বিস্ফোরণের পর যেগুলি ছড়িয়ে পড়ে সংলগ্ন বহুতলগুলির কার্নিশ এবং জানলার কাচ ফাটিয়ে দেয়। পাশাপাশি বোমার মধ্যে একাধিক রাসায়নিকের উপস্থিতির হদিশও পাওয়া গিয়েছে। এমন তথ্যই উঠে এসেছে প্রাথমিক তদন্তে।

জানা গিয়েছে, বিস্ফোরণের পর এখনও পর্যন্ত মূলত তিনটি জোরালো তথ্য উঠে এসেছে। প্রথমত, হাত বদলের জন্য শাসক দলের পার্টি অফিস সংলগ্ন এলাকাকে নিরাপদ ভেবে ওই স্থানে রাখা হয়েছিল বোমার বস্তাটিকে। দ্বিতীয়ত, বিস্ফোরণের উদ্দেশ্য নিয়েই ওই স্থানে বোমার বস্তা রাখা হয়েছিল। যে দাবি ইতিমধ্যেই করেছেন স্থানীয় বিধায়ক পূর্ণেন্দু বসু এবং পুরপ্রধান পাঁচু রায়। তৃতীয়ত, ওই স্থানে রাখা বোমার বস্তাটির সঙ্গে কোনো কিছুর সংঘর্ষের ফলেই সেটির বিস্ফোরণ ঘটে যায়। একটি মহলের মতে, মাওবাদীদের কায়দায় রাখা হয়েছিল ওই বোমা।

ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বম্ব স্কোয়াডের সদস্যরা। যদিও তাঁদের তরফে এখনও পর্যন্ত তেমন কোনো তথ্য প্রকাশ করা হয়নি। কিন্তু ওই স্থানে যে সকেট বোমা রাখা ছিল, এবং সেটি বেশ আধুনিক কায়দাতেই বাঁধা হয়েছিল, সে ব্যাপারে নিশ্চিত।

আরও পড়ুন: নাগেরবাজারের বিস্ফোরণস্থল থেকে পাওয়া কালো রঙের ব্যাগ পাঠানো হল ফরেনসিকে

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার সকালের ওই বিস্ফোরণে জখম হয় ১০ জন। যাদের মধ্যে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। বারাকপুর পুলিশ কমিশনারেট, সিআইডি ও ফরেনসিক বিভাগ তদন্ত চালাচ্ছে। বিরোধী দল বিজেপি এনআইএ তদন্তের দাবি তুলেছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন