ওয়েবডেস্ক: ২০১৬ সালের ৮ নভেম্বর দেশে নোটবন্দি ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বাতিল হয়ে গিয়েছিল যাবতীয় ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট। বদলে বাজারে আসে নতুন ৫০০ টাকা ও ২০০০ টাকার নোট। নরেন্দ্র মোদীর কথা অনুযায়ী নোটবন্দির প্রধান উদ্দেশ্য ছিল কালো টাকা ও জাল টাকা বাজার থেকে সরিয়ে দেওয়া। তবে ৫০০ টাকার নোট বাজারে তখনই আসেনি, এসেছিল ২০০০ টাকার নোট। সেই নোট ব্যাঙ্ক থেকে পেতেও কালঘাম ছুটে গিয়েছিল সাধারণ মানুষের।

তবে যেটা জানা যাচ্ছে, তা খুূবই তাৎপর্যপূর্ণ। ৩০ নভেম্বর কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ড ব্যুরোর যে রিপোর্ট প্রকাশ করেছেন, সেই অনুযায়ী ২০১৬ সালে মোট ২,২৭২টি জাল ২০০০ টাকার নোট ধরা পড়েছে। যেহেতু সেই বছরের ৮ নভেম্বরের আগে ভারতে ২০০০ টাকার নোটই ছিল না। তাই বোঝাই যায়, ওই ২,২৭২টি নোটই ধরা পড়েছে ৮ নভেম্বর থেকে ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে। অর্থাৎ ৫৩ দিনের মধ্যে।

রিপোর্ট আরও প্রকাশ, ২২৭২টি নোটের মধ্যে ১৩০০টি নোট উদ্ধার হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর রাজ্য গুজরাত থেকে। তারপর রয়েছে পঞ্জাব(৫৪৮), কর্নাটক(২৫৪), তেলেঙ্গনা(১১৪), মহারাষ্ট্র(২৭), মধ্যপ্রদেশ(৮), রাজস্থান(৬), অন্ধ্রপ্রদেশ, অরুণাচল প্রদেশ ও হরিয়ানা থেকে ৩টি করে, জম্মু ও কাশ্মীর ও কেরালায় ২টি করে এবং মণিপুর ও ওড়িশায় ১টি করে্।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here