আলোয়ার: ২১ বছরের এক মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার হলেন রাজস্থানের স্বঘোষিত ধর্মগুরু ফলহারি বাবা। আলোয়ারে নিজের আশ্রমে ওই মহিলাকে ধর্ষণে অভিযুক্ত হয়েছিলেন ওই ধর্মগুরু।

উচ্চরক্তচাপের সমস্যার কথা জানিয়ে আলোয়ারের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন ওই ধর্মগুরু। শনিবার পুলিশের সামনে তাঁর শারীরিক পরীক্ষা হয়। পরীক্ষায় দেখা যায় তাঁর সুগার লেভেল এবং রক্তচাপ একদম স্বাভাবিক। এর পরেই তাঁকে আদালতে তোলা হয়। আলোয়ার পুলিশের এসপি পরশ জৈন বলেন, “ফলহারি বাবার শারীরিক পরীক্ষায় দেখা গিয়েছে সব স্বাভাবিক।”

আদালত তাঁকে ১৫ দিনের জন্য বিচারবিভাগীয় হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে।

আরও পড়ুন ছাত্রীকে ধর্ষণে অভিযুক্ত হলেন রাজস্থানের ‘ফলহারি বাবা’

উল্লেখ্য, গত ১১ সেপ্টেম্বর ছত্তীসগঢ়ের বিলাসপুরের মহিলা থানায় ৭০ বছরের স্বামী কুশলেন্দ্র প্রপন্নচারি ফলহারি মহারাজ, ওরফে ফলহারি বাবার বিরুদ্ধে একটি ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের হয়। বিলাসপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপারিডেন্ট অর্চনা ঝা জানান, রাজস্থানের আলোয়ারে বাবার মধুসূদন আশ্রমে গত ৭ আগস্ট এই ঘটনা ঘটে।

পুলিশ আধিকারিক জানিয়েছেন, ছত্তীসগঢ়ের বিলাসপুরের বাসিন্দা ওই অভিযোগকারীর বাবা-মা সাত বছর ধরে ফলহারি বাবার শিষ্য। তাঁরা আশ্রমে নিয়মিত অর্থও দান করতেন। আইনের ছাত্রী ওই মেয়েটি ফলহারি বাবার সুপারিশের দিল্লিতে এক সিনিয়র আইনজীবীর কাছে শিক্ষানবীশ হিসাবে কাজ করার সুযোগ পান। মাসে তিন হাজার টাকা করে স্টাইপেন্ডও পেতেন। প্রথম বার স্টাইপেন্ড পাওয়ার পর তাঁর বাবা-মা বলেন বাবার আশ্রমে সেই অর্থ দান করতে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন