gujarat

নয়াদিল্লি: সরকারি খনি প্রকল্পের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে অংশগ্রহণকারী কয়েক হাজার কৃষকের বিক্ষোভে রণক্ষেত্রের চেহারা নিল গুজরাতের ভাবনগর। কৃষকদের অভিযোগ, আন্দোলনকারীদের ঠেকাতে পুলিশ অমানবিক পন্থা অবলম্বন করে। ছোড়া হয় কাঁদানে গ্যাস, চালানো হয় লাঠি। যা থেকে বাদ পড়েনি মহিলা ও শিশুরাও। পুলিশ অবশ্য জানিয়েছে, লাগামহীন ওই বিক্ষোভ ঠেকাতে ৫০ জনকে আটক করা হয়েছে।

২০ বছর আগে গুজরাত পাওয়ার কর্পোরেশন লিমিটেড ভাবনগরের ১২টি গ্রাম থেকে প্রায় তিন হাজার একর জমি অধিগ্রহণ করে। যেখানে ১২ হাজারের মতো কৃষক চাষবাস করতেন। অধিগ্রহণের বিজ্ঞপ্তি জারির পর থেকেই একাংশের কৃষক আন্দোলনে নামেন। কিন্তু প্রকল্প সে অর্থে বাস্তবায়ন না হওয়ায় তা দানা বাঁধেনি। স্বাভাবিক ভাবেই কৃষকরা ফের ওই জমিতে চাষাবাদের কাজ শুরু করে দেন।

সম্প্রতি পুলিশ দিয়ে সংস্থা ওই জমির দখল নিতে গেলেই সংঘাতের সৃষ্টি হয়। পুলিশ সুপার দীপঙ্কর ত্রিবেদী বলেন, বাদিগ্রামের ওই বিক্ষোভ দমন করতে ৫০ জন কৃষককে আটক করা হয়েছে। প্রায় ৫০টি কাঁদানে গ্যাসের শেল ফাটানো হয়েছে। পাশাপাশি পরিস্থিতির গুরুত্ব বুঝে পুলিশকে লাঠিও চালাতে হয়েছে।

যদিও কৃষকদের দাবি, সংস্থা জমির দখল নিচ্ছে এমন খবর চাউর হয়ে যাওয়ার পরেই তাঁরা সংগঠিত হতে থাকেন। নির্দিষ্ট কর্মসূচি নিয়েই শান্তিপূর্ণ ভাবে কৃষকরা প্রতিবাদ মিছিল বের করেন। সেই প্রতিবাদ মিছিলকে ছত্রভঙ্গ করতে বিশাল সংখ্যক পুলিশ বাহিনী পাঠানো হয়। ওই কৃষকদের বক্তব্য, চাষের জমি আমাদের রুটি-রুজির উৎস। ফলে জমির দখল ধরে রাখতে কৃষকরা তাঁদের পরিবার নিয়েই ওই মিছিলে অংশ নেন। সেখানে পরিবারের মহিলা ও শিশুরাও শামিল হয়। অথচ পুলিশ সেই নিরীহ মিছিলেই নৃশংস ভাবে আক্রমণ চালায়।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের জমি অধিগ্রহণ আইনকে হাতিয়ার করে কৃষকরা ইতি মধ্যেই উচ্চ আদালতে পিটিশন জমা করেছেন। আদালত সে ক্ষেত্রে নির্দেশ দিয়েছিল, পাঁচ বছর ওই জমির দখল নিতে পারবে না সংস্থা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here