farmers fast

ওয়েবডেস্ক: গত সোমবার সভাপতি-সহ এক ঝাঁক জাতীয় কংগ্রেস নেতৃত্ব অনশনে বসেছিলেন। বিজেপির সাম্প্রদায়িক রাজনীতির বিরুদ্ধে অহিংস পথে প্রতিবাদ জানাতেই ওই অনশন। তিন দিন পরেই পাল্টা অনশনে বসলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী-সহ বিজেপির অংসখ্য নেতা। বিরোধীরা সংসদের উভয় কক্ষ অচল করে রাখার প্রতিবাদে আয়োজিত হয় ওই অনশন।

তারপর থেকে দফায় দফায় অনশন চলেছে বিভিন্ন রাজ্যেও। মহারাষ্ট্রের দুই বিজেপি বিধায়ক তো অনশন মঞ্চে বসেই স্যান্ডউইচ আর চিপ্‌স খেয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছেন। অন্য দিকে দু’মুঠো অন্ন জোগাড় করতে ব্যর্থ কৃষক বেছে নিচ্ছেন #আত্মহত্যার পথ। এনডিএ শরিক হয়েও অনশন নিয়ে কংগ্রেস-সহ বিজেপিকে তীব্র কটাক্ষে বিঁধল শিবসেনার মুখপত্র ‘সামনা’।

modi-fast

সেনার মুখপত্রের সম্পাদকীয়তে লেখা হয়েছে, কেউ বলতে পারবেন না এই ধরনের অনশনে কোন অধিকার অর্জন করা যায়। দেশের অধিকাংশ #মানুষ ক্ষুধার্ত। শিশু মৃত্যুর কারণ হিসাবে উঠে আসছে অপুষ্টি। পরিবারের খাদ্য জোগাড় করতে না পেরে আত্মহত্যা করছেন কৃষকরা। শুধু মাত্র বিজেপি সরকারের আমলেই তিন হাজার #কৃষক আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন। সব মিলিয়ে আত্মহত্যাকারী কৃষকের সংখ্যা চার লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছে।

rahul-fast

যখন কংগ্রেস অনশনে বসে তখনও একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় হইচই ফেলে দেয়। দিল্লির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মদনলাল খুরানার ছেলে বিজেপি নেতা হরিশ খুরানার ‌টুইটারে পোস্ট করা একটি ছবিতে দেখা যায়, কংগ্রেস নেতা অজয় মাকেন, হারুন ইউসুফ এবং অরবিন্দর সিং লাভলি একটি রেস্তোরাঁয় বসে উদরপূর্তি করছেন। একই ভাবে মহারাষ্ট্রে অনশনে বসা দুই বিজেপি বিধায়ক ভীমরাও তাপকির এবং সঞ্জয় ভেগাড়ে প্রকাশ্যেই অনশন মঞ্চে বসেই স্যান্ডউইচ এবং চিপস মুখে তুলে নিয়ে ভেট ভরাচ্ছেন। তা হলে আর অনশন কীসের?

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here