রাজ্যে গোহারা হারবেন, আগাম আভাস পেয়েই কি ভারতভ্রমণে ঘাম ঝরালেন চন্দ্রবাবু নাইডু

রাজ্যে যে দলের ফল খারাপ হতে পারে তা আগেই আন্দাজ করেছিলেন চন্দ্রবাবু। লোকসভা ভোটে অন্তত ১০টি আসন পাবেন বলে আশা করেছিলেন তিনি।

0
chndrababu-naidu

ওয়েবডেস্ক: বিরোধী জোটকে এককাট্টা করার জন্য বিস্তর দৌড়দৌড়ি করেছেন অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নাইডু। ফল বেরনোর এক দিন আগে পর্যন্ত তিনি বৈঠক করেছে রাহুল গান্ধী, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অখিলেশ-মায়াবতীর সঙ্গে। কিন্তু লোকসভা ভোটের ফলে যে ভাবে ফলে একক সংখ্যা গরিষ্ঠতা পেল বিজেপি তাতে তাঁর এই দৌড়দৌড়ি, বৈঠকের পর বৈঠকই সার হয়ে গেল।

লোকসভা ভোটের পাশাপাশি এ বার অন্ধ্রপ্রদেশে ছিল বিধানসভা নির্বাচন। সেখানে তিনি মুখ পুড়িয়েছেন ওয়াইএসআর কংগ্রেসের জগন্মোহন রেড্ডির কাছে। সেই অন্ধ্রে কার্যত সুইপ করেছে ওয়াইএসআর কংগ্রেস। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বিধানসভার ১৭১টা আসনের মধ্যে ১৪১-এ এগিয়ে জগন্মোহনের দল

শুধু বিধানসভা নয় লোকসভা ভোটেও ওয়াইএসআর কংগ্রেসের কাছে ধাক্কা খেয়েছে চন্দ্রবাবুর দল। ২৫ আসনের মধ্যে ২৪ টাতে জিতছে তারা। বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজ্যপালের কাছে তাঁর ত্যাগপত্রপত্র পাঠিয়ে দেবেন চন্দ্রবাবু নাইডু।

কেন এত দৌড়দৌড়ি, বৈঠক ?

রাজনৈতিক মহলের মতে বিধানসভা ভোটে রাজ্যে যে দলের ফল খারাপ হতে পারে তা আগেই আন্দাজ করেছিলেন চন্দ্রবাবু। লোকসভা ভোটে অন্তত ১০টি আসন পাবেন বলে আশা করেছিলেন তিনি। তাই রাজনীতিতে নিজেকে প্রাসঙ্গিক রাখতে মোদী-বিরোধী মহাজোটের নেতৃত্বে থাকতে চেয়েছিলেন তিনি।

তিনি এতটাই আশাবাদী ছিলেন যে বুথ ফেরত সমীক্ষার পরও বৈঠক চালিয়ে গিয়েছেন। কিন্তু ফল প্রকাশে পর দেখা গেল রাজনীতিতে তাঁর হাঁটুর বয়সি জগন্মোহন রেড্ডি বিধানসভায় একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছেন, লোকসভাতেও একটি আসনও পায়নি তাঁর দল টিডিপি।

এখন কী করবেন তিনি?

চন্দ্রবাবুর পর তাঁর ছেলে নারা লোকেশ দলে তাঁর উত্তরসূরি। কিন্তু গত পাঁচ বছরে নেতা হিসাবে নিজেকে প্রমাণ করতে পারেননি তিনি। ফলে এই হার চন্দ্রবাবুর একার দায় । রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ এস রামাকৃষ্ণণের মতে, ‘‘ চন্দ্রবাবুর মতো মনের জোর এবং ক্ষুরধার বুদ্ধির রাজনীতিবিদ খুবই কম আছেন। ১০ বছর ক্ষমতার বাইরে থাকা সত্ত্বে ২০১৪ সালে তিনি নির্বাচনে জিতে রাজ্য ক্ষমতায় আসেন। তাই একটা ভোটে হেরে যে তিনি হাল ছেড়ে দেবেন তেমনটা নয়।’’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.