কর্মচারী পেনশন স্কিমের আওতায় ন্যূনতম মাসিক পেনশনের পরিমাণ দ্বিগুণ করছে কেন্দ্র

যাঁরা প্রভিডেন্ট ফান্ড অর্গানাইজেশন (ইপিএফও)-এর অন্তর্ভুক্ত কর্মী তাঁরা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই এই পেনশন স্কিমের গ্রাহক হয়ে যান।

0
Currency
নতুন পেনশন প্রকল্পে সঞ্চয়ের নিয়মকানুন। প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: কর্মচারী পেনশন স্কিম বা ইপিএসে ন্যূনতম মাসিক পেনশনের পরিমাণ বাড়িয়ে দ্বিগুণ করছে কেন্দ্রীয় সরকার। এর ফলে এই প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত পেনশনপ্রাপকের ন্যূনতম মাসিক প্রাপ্য ২০০০ টাকা হতে চলেছে। বর্তমানে প্রায় ৪০ লক্ষ মানুষ ইপিএসের এই স্তরের পেনশন পেয়ে থাকেন।

উল্লেখ্য, যাঁরা প্রভিডেন্ট ফান্ড অর্গানাইজেশন (ইপিএফও)-এর অন্তর্ভুক্ত কর্মী তাঁরা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই এই পেনশন স্কিমের গ্রাহক হয়ে যান।

জানা গিয়েছে, একটি উচ্চ পর্যায়ের শ্রম কমিটি অর্থ মন্ত্রকের কাছে এ ব্যাপারে প্রস্তাব জমা করেছে। ওই প্রস্তাব সক্রিয় ভাবেই বিবেচিত হচ্ছে বলেও মন্ত্রক সূত্রে খবর।

শ্রম মন্ত্রক সূত্রে খবর, বর্তমানে ৬০ লক্ষ পেনশনপ্রাপকের মধ্যে ৪০ লক্ষের পেনশন মাসিক দেড় হাজার টাকার নীচে। এর মধ্যে আবার প্রায় ১৮ লক্ষ অবসরপ্রাপ্ত কর্মী মাসে মাত্র ১,০০০ টাকা করে পেনশন পেয়ে থাকেন।

[ আরও পড়ুন: অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি না থাকলেও অন্তর্বর্তী বাজেটে থাকছে চমক! ]

উল্লেখ্য, কর্মীরা স্বয়ংক্রিয়ভাবে ইপিএস স্কিমে তালিকাভুক্ত হয়ে যান, যখনই তাঁরা ইপিএফ প্রকল্পের সদস্য হন। একজন কর্মচারীর বেতন থেকে প্রতি মাসে ১২% অর্থ তাঁদের ইপিএফ অ্যাকাউন্টে যায়। পাশাপাশি নিয়োগকর্তার অবদানও থাকে আরও ১২%। সেখান থেকেই জমা পড়া টাকা ইপিএফ (৩.৬৭%) এবং ইপিএস (৮.৩৩%) এবং ইডিএলআই (.৫%)-এ ভাগ হয়ে যায়। এ ছাড়া অন্যান্য প্রশাসনিক চার্জ নিয়োগকর্তার মাধ্যমেই বহন করা হয়। এই খাতে সর্বাধিক ১,২৫০ টাকা পর্যন্ত প্রতি মাসে জমা পড়ে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here