isi terorist group attacked

নয়াদিল্লি: ভারতের আসন্ন সাধারণতন্ত্র দিবস উপলক্ষ্যে যখন সারা দেশে ব্যস্ততা তুঙ্গে তখন সেই ব্যস্ততার আঁচ গিয়ে পড়ল প্রতিবেশী পাকিস্তানেও। তবে তাদের কাছে ভারতের এই বিশেষ দিনটির উদযাপন নয়, তা ভেস্তে দিতে বড়োসড়ো নাশকতা মূলক কর্মকাণ্ড ঘটানোর তাগিদই বেশি বলে প্রমাণিত হচ্ছে আইএসআইয়ের নির্দেশিকায়।

সম্প্রতি ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কাছে গোয়েন্দারা একটি গোপন রিপোর্ট পেশ করলেন। যেখানে বলা হয়েছে, আগামী ২৬ জানুয়ারি সাধারণতন্ত্র দিবসের মধ্যেই পাকিস্তানের বেশ কয়েকটি জঙ্গি সংগঠন বড়োসড়ো নাশকতা চালানোর ছক তৈরি করেছে। ওই রিপোর্ট হাতে পাওয়া মাত্রই মন্ত্রক  আকাশ পথে নজরদারি চালানো এবং বিমান চলাচলে একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, এই নির্দিষ্ট সময় কালে ভারতের আকাশে যে কোনো ধরনের বিমান চলাচলে সুরক্ষা সম্পর্কিত যাবতীয় সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

গোয়ন্দাদের কাছে খবর রয়েছে, কয়েক দিন আগে পাকিস্তানের রাওয়ালপিন্ডিতে একটি বৈঠকের আয়োজন করেছিল পাকিস্তানের জঙ্গি সংগঠনগুলির নিয়ন্ত্রক আইএসআই। যেখানে উপস্থিত ছিলেন সে দেশের বেশ কয়েকজন উচ্চপদস্থ সামরিক আধিকারিক এবং চিহ্নিত কিছু জঙ্গি সংগঠনের প্রতিনিধিরা। ওই বৈঠকেই জম্মু-কাশ্মীরে  অশান্তি ছড়াতে গিয়ে বেশ কয়েকজন সদস্যের প্রাণ হারানোর বিষয় নিয়ে ভর্ৎসনা করা হয় লস্কর-ই-তইবা বা জইশ-ই-মহম্মদের মতো বেশ কিছু জঙ্গি সংগঠনকে। তাদের উদ্দেশ্যে এমনও বলা হয়েছে, ওই সংগঠনগুলির শক্তি হ্রাস পাওয়ার ঘটনা এ সবের মাধ্যমে প্রকাশ্যে চলে আসছে। সব মিলিয়ে আইএসআই কড়া নির্দেশ জারি করেছে অধস্তন জঙ্গি সংগঠনগুলির উদ্দেশ্যে। বলা হয়েছে, ভারতের সাধারণতন্ত্র দিবসকে সামনে রেখে বড়ো কোনো নাশকতা মূলক ঘটনা না ঘটাতে পারলে তাদের আর্থিক সহায়তা বন্ধ করে দেওয়া হবে।

গোয়েন্দাদের কাছ থেকে এমন খবর পেয়ে বাড়তি উদ্যোগ নিয়েছে ভারতীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। দিল্লি, পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ, উত্তরাখণ্ড এবং হিমাচলপ্রদেশের রাজ্য সচিবালয় এবং পুলিশ কমিশনারের কাছে বিশেষ নির্দেশ পাঠানো হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন