খবরঅনলাইন ডেস্ক: তামিলনাড়ুতে (Tamil Nadu) জেলের ভেতরে বাবা আর ছেলের ওপরে পুলিশি নির্যাতনের ঘটনায় চার পুলিশ আধিকারিককে গ্রেফতার করেছে সিআইডি (CID)।

এই চার জনের মধ্যে একজন মূল অভিযুক্ত সাব ইন্সপেক্টর রঘু গণেশকে আগেই গ্রেফতার করা হয়েছিল। তাঁর বিরুদ্ধে খুনের মামলা রুজু করা হয়েছে।

তুতুকোডির জেলে পুলিশি নৃশংশতার তদন্ত চালাচ্ছে একাধিক তদন্তকারী দল। যৌথ ভাবে তদন্ত চালাচ্ছে ক্রাইম ব্রাঞ্চ এবং সিআইডি। তাদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০২ নং ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে।

এ ছাড়াও মূল অভিযুক্ত রঘু গণেশ এবং বালাকৃষ্ণণের বিরুদ্ধে একাধিক ধারায় মামলা রুজু করেছে বিশেষ তদন্তকারী দল।

উল্লেখ্য, গত ১৯ জুন জেলের ভেতরে নৃশংস ভাবে অত্যাচার করা হয় তুতুকোডির সাধারণ দোকানি জয়রাজ আর তাঁর ছেলে বেনিক্সকে। লকডাউনে দোকান বন্ধ করার সময় হয়ে গেলেও কেন তাঁরা দোকান খোলা রেখেছেন, সেই অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়।

অভিযোগ, হেফাজতে থাকাকালীন নৃশংস শারীরিক অত্যাচার চালানো হয়েছিল এই বাবা-ছেলের ওপরে।। ময়না তদন্তের রিপোর্টে তাঁদের শরীরে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়। দু’জনের বিরুদ্ধে ১৮৩, ৩৮৩ ও ৫০৬ (খ) ধারায় মামলাও রুজু করেছিল পুলিশ। ২৩ ঘণ্টার ব্যবধানে মৃত্যু হয় বাবা ও ছেলের।

ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসতেই প্রবল সমালোচনার মুখে পড়ে পুলিশ। গোটা দেশই গর্জে ওঠে। প্রতিবাদীরা জর্জ ফ্লয়েড হত্যার সঙ্গেও তুলনা করতে থাকেন এই ঘটনাকে। পুলিশি অত্যাচারের বিরুদ্ধে সরব হন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীও। গোটা ঘটনায় প্রবল চাপের মুখে পড়ে অভিযুক্ত পুলিশ আধিকারিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হয় শাসক দল এএআইএডিএমকে।

এর পরে দুই সাব ইনসপেক্টর রাতারাতি গ্রেফতার হন। অন্য দিকে স্থানীয় বিচার বিভাগীয় ম্যা্জিস্ট্রেটের রিপোর্টে পুলিশি হেফাজতে অত্যাচারের ঘটনায় তদন্তে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠে আসে তুতুকোডির ডিএসপি সি প্রথপন, অতিরিক্ত ডিএসপি ডি কুমার এবং কনস্টেবল মহারাজনের বিরুদ্ধ। ওই তিন জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলার নির্দেশ দিয়েছে মাদ্রাজ হাইকোর্ট।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন