toll tax

ওয়েবডেস্ক: গাড়ি করে বেড়াতে বেরিয়েছেন। জাতীয় সড়কে লং ড্রাইভের আনন্দে মন বিভোর। সেই আনন্দের তাল হঠাৎ করে কেটে যায় টোল প্লাজার সামনে এলে। সারি সারি গাড়ি, ট্রাক, বাস লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে। ভাগ্য ভালো থাকলে সেই জ্যাম ঠেলে মিনিট পনেরোর মধ্যেই টোল দেওয়া হয়ে যায়, আবার ভাগ্য খারাপ থাকলে ঘন্টাখানেক সময়েও লেগে যায়। আমাদের দুর্গাপুর এক্সপ্রেসওয়ে হোক বা মুম্বই-পুণে এক্সপ্রেসওয়ে, সমস্যাটা একই।

সেই সমস্যা কমানোর উদ্যোগ নিল কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহণ মন্ত্রক। ইলেক্ট্রনিক পদ্ধতিতে টোল নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা। ৩১ অক্টোবর থেকেই এই পদ্ধতি চালু করা হবে।

কী ভাবে নেওয়া হবে এই টোল?

এই পরিষেবার জন্য ‘রেডিও ফ্রিকুয়েন্সি আইডেন্টিফিকেশন ট্যাগ’ বা ‘ফাস্টট্যাগ’ নামক বিশেষ একটি ট্যাগ গাড়িগুলিকে দেওয়া হবে। টোল প্লাজাগুলিকেও  ইলেক্ট্রনিক পদ্ধতিতে টোল নেওয়ার উপযুক্ত করা হবে। যখন ফ্যাস্টট্যাগ থাকা কোনো গাড়ি টোল প্লাজার পাশ দিয়ে যাবে, তখন স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে ফ্যাস্টট্যাগে দেওয়া একটি বিশেষ নম্বর বুঝতে পারবে টোল প্লাজাগুলি এবং টোলের টাকা কেটে নেওয়া হবে। অনলাইন এবং অফলাইন পদ্ধতিতে এই ফ্যাস্টট্যাগ রিচার্জ করা যাবে।

আপাতত দেশের মাত্রা দু’টো সড়কের টোল প্লাজায় এই নতুন পরিষেবার ব্যবস্থা রয়েছে। তবে ক্রমে দেশের সব সড়কে এই ব্যবস্থা করা হবে বলে জানিয়েছে সড়ক পরিবহণ মন্ত্রক। মন্ত্রকের সচিব ওয়াইএস মালিক বলেন, এখনও পর্যন্ত যে সড়কগুলিতে এই ব্যবস্থা দেওয়া হয়নি, সেখানে নগদ, কার্ড এবং ই-ওয়ালেটের মাধ্যমেই টাকা দেওয়া যাবে।

এখনও পর্যন্ত ৪০ লক্ষ গাড়ির মধ্যে মত্র ৬,২০,০০০ গাড়িতে এই ফাস্টট্যাগ দেওয়া হয়েছে। মালিকের কথায়, “২০১৮-এর মার্চের মধ্যে ১৫ লক্ষ গাড়িতে ফাস্টট্যাগ দিতে পারব।”

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন