সংসদের ক্যান্টিনে আর ভরতুকি নয়, বছরে বাঁচবে কমপক্ষে ১৭ কোটি টাকা

0
Parliament canteen
প্রতীকী ছবি

নয়াদিল্লি: সংসদের ক্যান্টিনে সাংসদদের খাবারে আর ভরতুকি নয়। বৃহস্পতিবার লোকসভার অধ্যক্ষ ওম বিড়লার পরামর্শে সর্বসম্মতিক্রমে এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সূত্রের খবর, সংসদের ক্যান্টিনে সাংসদদের জন্য ভরতুকি তুলে দেওয়া হলে কমপক্ষে বার্ষিক ১৭ কোটি টাকা সাশ্রয় হতে পারে সরকারের। এ দিন অধ্যক্ষের পরামর্শের সায় দেন সাংসদরাও।

এমনিতে সংসদ চত্ত্বরের ক্যান্টিনে সাংসদ, আধিকারিক এবং দর্শনার্থীদের জন্য খাবারের উপর ভরতুকি দেওয়া হয়। গত বছরখানেক সময় ধরে এই সরকারি ভরতুকি নিয়ে বিভিন্ন মহলে বিতর্কের সৃষ্টি হয়। সাংসদদের আবশ্যক ব্যয়ের জন্য সরকারি বেতন দেওয়া সত্ত্বেও কেন তাঁদের খাবারে সরকারি ভরতুকি দেওয়া হবে, সে বিষয়েই সমালোচনার সৃষ্টি হয়। একই কথা প্রযোজ্য সরকারি আধিকারিকদের ক্ষেত্রেও।

parliament
প্রতিনিধিত্বমূলক ছবি

শেষ বছরে উত্তর রেলওয়ে সরকারের কাছে ১৬.৪৩ কোটি টাকা দাবি করার পর বিতর্কে ঘৃতাহুতি হয়। উত্তর রেল সংসদের সচিবালয়ে চারটি ক্যান্টিন চালায়। তথ্য জানার অধিকারের আওতায় একটি প্রশ্নের জবাবে জানানো হয়, গত ২০১৭-১৮ সালের জন্য ওই টাকা দাবি করে উত্তর রেল। সংস্থা ভরতুকি এবং অন্যান্য খাতেই ওই টাকা দাবি করেছিল বলে জানানো হয়।

[ আরও পড়ুন: হাওয়া খারাপ! ফের জিডিপির লক্ষ্যমাত্রা কমাল রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ]

এর আগে ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে সংসদের সচিবালয় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানায়, সংসদের ক্যান্টিনগুলি নো প্রফিট, নো লস ভিত্তিতে চালাতে হবে। গত ২০১৮ সালে তথ্যের অধিকারে একটি আবেদনের উত্তরে জানানো হয়, সংসদদের ক্যান্টিনে ২ টাকায় রুটি, ৭ টাকায় ভাত, ১৮ টাকায় মশলা ধোসা এবং ৫০ টাকায় চিকেন কারি পাওয়া যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.