ওয়েবডেস্ক: ২০১৫-১৬ সালের চতুর্থ জাতীয় পরিবারস্বাস্থ্য সমীক্ষা অনুযায়ী সারা দেশের ৫৩ শতাংশ মহিলা রক্তাল্পতায় ভুগতেন। হালের গ্লোবাল নিউট্রিশন রিপোর্ট বলছে, ২ শতাংশ কমেছে সেটি। বর্তমানে ভারতীয় মহিলাদের ৫১% রক্তাল্পতা বা অ্যানিমিয়ায় ভোগেন। অথচ এই দেশেরই আবার জনসংখ্যার ২২% স্থূলতার শিকার।

আরও পড়ুন; মোটা শিশুদের সংখ্যায় বিশ্বের দ্বিতীয় স্থানে ভারত

১৪০টি দেশের সার্বিক পুষ্টির পরিস্থিতি পরীক্ষা করে প্রকাশ করা হয় গ্লোবাল নিউট্রিশন রিপোর্ট। সদ্য প্রকাশিত এই রিপোর্ট বলছে, ভারতে ৫ বছরের নীচে ৩৮% শিশু অপুষ্টির কারণে এমন এক শারীরিক অস্বাভাবিকত্বের শিকার, যার ফলে তাদের বৃদ্ধি হয় না, উচ্চতাও বয়সের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে বাড়ে না। ২১% শিশুর উচ্চতার সঙ্গে তাদের ওজন অসঙ্গতিপূর্ণ। সমীক্ষা চালানো দেশগুলির ৮৮%-এ রয়েছে দু-তিন ধরনের অপুষ্টিজনিত সমস্যা। ‘গ্লোবাল নিউট্রিশন রিপোর্ট ২০১৭’ আরও একবার মনে করিয়ে দিতে চেয়েছে যথাযথ পুষ্টির সঙ্গে ওতপ্রোত ভাবে জড়িত দারিদ্র দূরীকরণ, রোগ প্রতিরোধ, শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধি এবং জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়ার মতো বিষয়।

অধিক ওজন এবং স্থূলতার ছবিটা কিন্তু সারা পৃথিবী জুড়েই বেশ অস্বস্তিদায়ক। বিশ্বের ৭০০ কোটি জনসংখ্যার ২০০ কোটিই ওবেজ বা স্থূলকায়। দেশের প্রাপ্তবয়স্কদের স্থূলতা এবং ডায়াবেটিসের সমস্যাও কিন্তু বিগত কয়েক বছরে অনেকটা বেড়েছে। অন্তত সে রকমই বলছে রিপোর্টের পরিসংখ্যান। স্বাভাবিকের তুলনায় দেশের ওজন বেশি, এমন মহিলা এবং পুরুষের পরিমাণ দেশে যথাক্রমে ২২ এবং ১৬ শতাংশ।

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here