পানজিম: জাতীয় সড়কের ধারে মদের দোকান বন্ধ করার শীর্ষ আদালতের নির্দেশের ফলে সব থেকে ক্ষতিগ্রস্ত গোয়া। বিপুল রাজস্ব ক্ষতির মুখে গোয়া সরকার। তাই ‘বিশেষ বিবেচনা’-এর জন্য সুপ্রিম কোর্টের দারস্থ হওয়ার চিন্তাভাবনা করছে রাজ্য প্রশাসন।

মঙ্গলবার, গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী মনোহর পররিকর জানিয়েছেন, ” ডিসেম্বরে সুপ্রিম কোর্ট যে রায় দিয়েছিল, তার পর রাজ্যের তিন হাজারটি ইউনিট বন্ধ হওয়ার মুখে ছিল। কিন্তু ৩১ মার্চ সুপ্রিম কোর্ট যে নির্দেশ দিয়েছে এর ফলে এক হাজারটি ইউনিট চিন্তামুক্ত হয়েছে।” উল্লেখ্য ৩১ মার্চ, তাদের রায়ে সুপ্রিম কোর্ট বলেছিল যে এলাকায় জনসংখ্যা কুড়ি হাজারের কম সেখানে  জাতীয় সড়কের ২২০ মিটারের মধ্যে মদের দোকান রাখা যাবে। 

মঙ্গলবার সকালে রাজ্যের বিভিন্ন মদ ব্যবসায়ী এবং গোয়ার পর্যটন সংস্থার (টিটিএজি) সঙ্গে বৈঠক করেন পররিকর। বৈঠক শেষে তিনি বলেন, “এখন বাকি দু’হাজারটি ইউনিট নিয়ে সমস্যা রয়েছে। আমাদের মনে হয় শীর্ষ আদালত গোয়ার জন্য বিশেষ বিবেচনা করতে পারত। কিন্তু সেটা সম্পূর্ণ আদালতের বিচারাধীন। বিশেষ বিবেচনার দাবি নিয়ে আমরা চেষ্টা করছি শীর্ষ আদালতের দারস্থ হওয়ার।”

এর পাশাপাশি পররিকর জানান, শীর্ষ আদালতের নির্দেশ মেনে কোনো ইউনিট যদি জাতীয় সড়কের পাঁচশো এবং ২২০ মিটার পরিধির বাইরে নিজেদের সরিয়ে নিয়ে যেতে চায় তাহলে গোয়া সরকার তাদের থেকে কোনো বাড়তি টাকা দাবি করবে না। পাশাপাশি তিনি জানান রাজ্যের অনেকাংশেই পুরনো জাতীয় সড়কের পাশে নতুন বাইপাস তৈরি হওয়া সত্বেও পুরনো রাস্তাগুলোয় এখনও জাতীয় সড়কের মর্যাদা থেকে গিয়েছে। সে ব্যাপারে নতুন করে ভাববে গোয়া সরকার।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here