কোভিড-১৯ মহামারির মধ্যে দেশের গ্রামীণ কর্মসংস্থানে সুখবর!

0

ওয়েবডেস্ক: কোভিড-১৯ মহামারি (Covid-19 pandemic) এবং লকডাউনের (Lock down) জেরে কাজ হারিয়েছেন দেশের কয়েক লক্ষ মানুষ। বর্তমানে করোনাভাইরাস (Coronavirus) সংক্রমণ বাড়তে থাকলেও একাধিক ক্ষেত্রে কড়াকড়ি শিথিল হওয়ার কারণে হৃত কর্মসংস্থান ধীরে ধীরে পুনরুদ্ধার হচ্ছে বলে একটি সমীক্ষায় উঠে এসেছে। সমীক্ষক সংস্থা জানিয়েছে, চলতি জুলাইয়ে সার্বিক কর্মসংস্থানে কিছুটা হলেও আশার আলো দেখা যাচ্ছে।

সেন্টার ফর মনিটরিং ইন্ডিয়া ইকোনমি (CMIE) -এর একটি সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জুলাই মাসে গ্রামীণ কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে আরও উন্নতি ঘটেছে এবং বেকারত্বের হার আরও হ্রাস পেয়েছে। অন্য দিকে শহুরে কর্মসংস্থানের সুযোগও বাড়ছে।

মুম্বই-ভিত্তিক সমীক্ষক সংস্থাটি এর আগে অনুমান করেছিল, চলতি জুলাই মাসে কর্মসংস্থানের হার আগের মাসের তুলনায় হ্রাস পেতে পারে। তবে সাময়িক স্বস্তি দিতে বেশ কয়েকটি উদ্যোগ কর্মসংস্থানের সংখ্যা বৃদ্ধিতে অনুঘটক হিসাবে কাজ করেছে।

সংস্থার সিইও মহেশ ব্যাস ইন্ডিয়া টু-ডের কাছে বলেন, জুন মাসের তুলনায় কাজের সুযোগ কম হলেও সার্বিক ফলাফল ইতিবাচক দিকেই এগিয়ে চলেছে।

তুল্যমূল্য

শহুরে এলাকাতেও অংশগ্রহণ বাড়ছে।

গ্রামাঞ্চলের বৃহত্তর অংশের কাছে কাজের সুযোগ মেলার কারণে জুনে কর্মসংস্থানের হারে ক্রমবর্ধমান বৃদ্ধি ধরা পড়ে। তবে সে ক্ষেত্রে শহুরে এলাকায় সেই উৎসাহ অনেকটাই কম ছিল। এর পরে শহুরে কর্মসংস্থানের হারও উন্নত হওয়ায় ধারাবাহিকতা ধীরে ধীরে পরিবর্তিত হচ্ছে বলে মনে করছে সংস্থা।

চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে গড় কর্মসংস্থানের হার ছিল ৩৭.৫ শতাংশ। কিন্তু লকডাউনের আগের পরিসংখ্যানের থেকে তা অনেকটাই দুর্বল। যদিও গ্রামাঞ্চলে কর্মসংস্থান পুনরুদ্ধারের হার যথেষ্ট উল্লেখ্যনীয়।

অন্য দিকে ১০ জুলাই শেষ হওয়া সপ্তাহে গ্রামীণ কর্মসংস্থান পুনরুদ্ধারের হার ৩৫.১ শতাংশ। গত এপ্রিল মাসে তলানিতে গিয়ে ঠেকার পর এটাই সর্বোচ্চ।

এ ক্ষেত্রে শুধু যে কর্মীর অংশগ্রহণ বেড়েছে তা নয়, কর্মসংস্থানের হারও ৩৮.৪ শতাংশ বেড়েছে। ১৯ জুলাই শেষ হওয়া সপ্তাহের হিসাবে এই পরিসংখ্যান উঠে এসেছে।

কী ভাবে হাল ফিরছে?

একশো দিনের কাজ-সহ একাধিক উদ্যোগে গ্রামীণ মানুষের অংশগ্রহণ বাড়ছে।

সিএমআইই-র মতে, লকডাউনে সব কিছু এলোমেলো হয়ে যাওয়ার পর গত ২৮ জুন শেষ হওয়া সপ্তাহে কর্মসংস্থানের হার ছিল সর্বোচ্চ। সে সময় এই হার ছিল ৩৪.৫ শতাংশ। কিন্তু জুলাইয়ে প্রথম সপ্তাহে তা ঠেকে ৩৩.২ শতাংশে। তবে কয়েক সপ্তাহ ধরে দেখা যাচ্ছে, শহুরে এলাকায় হৃত কর্মসংস্থানের সুযোগ কিছুটা হলেও বাড়ছে। বর্তমানের সংকট কাটিয়ে উঠতে যা স্বস্তির হাওয়া বয়ে নিয়ে আসতে পারে।

এমনিতে লকডাউন উঠে যাওয়ার পর আনলক পর্যায় শুরু হওয়ার পরেও করোনা-সংক্রমণ ঠেকাতে বিভিন্ন জায়গায় ফের মিনি লকডাউন চালু হয়েছে। এর মধ্যেও শহুরে এলাকার মানুষের কাজে অংশগ্রহণও বেশ কয়েকপূর্ণ বলে মনে করছে সমীক্ষক সংস্থা।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন