পথ দুর্ঘটনায় আহতকে হাসপাতালে পৌঁছে দিলে মিলবে বিপুল অঙ্কের পুরস্কার, বড়ো ঘোষণা কেন্দ্রের

0
দুর্ঘটনা বিমা

বছরে ১ লক্ষ ২৫ হাজার টাকার পুরস্কার পেতে পারেন কোনো ব্যক্তি।

নয়াদিল্লি: সমাজ সচেতন নাগরিকদের জন্য উৎসাহব্যঞ্জক এক কর্মসূচি ঘোষণা করল কেন্দ্রীয় সরকার। পথ দুর্ঘটনায় গুরুতর আহতকে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে হাসপাতালে পৌঁছে দিলে মিলতে পারে বিপুল অঙ্কের নগদ আর্থিক পুরস্কার। সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে চলতি অক্টোবর মাসেই এই কর্মসূচি চালু করছে কেন্দ্র।

কত টাকা পুরস্কার?

প্রায়শই দেখা যায়, পথ দুর্ঘটনার শিকার হয়ে রাস্তায় ছটফট করছেন আহত। পুলিশ না আসা পর্যন্ত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে গা-ছাড়া মনোভাব দেখান পথচলতি মানুষ। তবে কেউ কেউ উদ্যোগী হয়ে এগিয়ে আসেন। আহতকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থাও করেন। তাঁদের উৎসাহ বাড়াতেই নতুন একটি প্রকল্প চালু করছে কেন্দ্র।

সোমবার কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহণ মন্ত্রক ঘোষণা করেছে, দুর্ঘটনায় গুরুতর আহতদের হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়ার জন্য এগিয়ে আসা মানুষদের উৎসাহিত করতে একটি স্কিম চালু করা হচ্ছে। এই কর্মসূচির অধীনে যাঁরা পথ দুর্ঘটনার শিকার ব্যক্তিকে ‘গোল্ডেন আওয়ার’ (দুর্ঘটনার এক ঘণ্টা)-এর মধ্যে হাসপাতালে অথবা ট্রমা কেয়ার সেন্টারে নিয়ে গিয়ে তাঁর জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসবেন, নগদ ৫,০০০ টাকা পুরস্কার দেওয়া হবে তাঁদের।

নির্দেশিকা অনুযায়ী, জরুরি পরিস্থিতিতে পথ দুর্ঘটনায় একের বেশি গুরুতর আহতকে সাহায্য করার জন্য একাধিক ব্যক্তি ৫,০০০ টাকা করে পুরস্কার পেতে পারেন। সব ক্ষেত্রেই এক জনের ক্ষেত্রে পুরস্কারের সর্বোচ্চ মূল্য ৫,০০০ টাকা।

একই সঙ্গে কোনো ব্যক্তি এক বছরে সর্বোচ্চ পাঁচ বার পর্যন্ত ৫,০০০ টাকা পুরস্কার পেতে পারেন। সেই হিসেবে কোনো ব্যক্তি পাঁচ বার জীবন বাঁচিয়ে ২৫ হাজার টাকার পুরস্কার পেতে পারেন।

আবার প্রতিটি ক্ষেত্রে পুরস্কার ছাড়াও, সেরা ব্যক্তির জন্য ১০টি জাতীয় স্তরের পুরস্কার থাকবে (যারা সারা বছর ধরে পুরস্কৃত হয়েছেন, তাঁদের মধ্য থেকে নির্বাচিত হবেন) এবং তাঁদের এক লক্ষ টাকা পুরস্কার দেওয়া হবে।

সেরা পুরস্কৃতকে নাগরিক সংবর্ধনা দেবে কেন্দ্র। অর্থাৎ, সব মিলিয়ে কোনো ব্যক্তি নতুন এই কর্মসূচিতে সক্রিয় থেকে বছরে সব মিলিয়ে ১ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা মূল্যের পুরস্কার পেতে পারেন।

কবে থেকে চালু হচ্ছে?

সমস্ত রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের প্রধান ও পরিবহণ সচিবদের উদ্দেশে মন্ত্রকের চিঠিতে বলা হয়েছে, এই প্রকল্পটি ১৫ অক্টোবর, ২০২১ থেকে ৩১ মার্চ, ২০২৬ পর্যন্ত কার্যকর থাকবে।

কী ভাবে আবেদন জানাবেন?

গত ২০২০ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর মোটর ভেহিকল অ্যামেন্ডমেন্ট অ্যাক্ট , ২০১৯-এর আওতায় এই কর্মসূচির সামঞ্জস্যপূর্ণ বিধি জারি করেছিল সড়ক পরিবহণ মন্ত্রক।

এ ক্ষেত্রে কোনো এগিয়ে আসা ব্যক্তি আহতকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি নিজেই পুলিশকে জানাতে পারেন। চিকিৎসকের কাছ থেকে তথ্য যাচাইয়ের পর পুলিশ এ বিষয়ে শংসাপত্র দেবে।

এ ব্যাপারে একটি পোর্টালও চালু করবে কেন্দ্রে। সেখানে বিস্তারিত তথ্য আপলোড করতে পারবেন আহতকে হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়া ব্যক্তি। এ ছাড়া থানা এবং হাসপাতালেও তরফে এ ধরনের ঘটনা এবং সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির তথ্য আপলোড করা যাবে ওই পোর্টালে।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন