kashmir

ওয়েবডেস্ক: কাশ্মীরের মন জয়ে একটি উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ করতে পারে কেন্দ্র। পুলিস এবং নিরাপত্তাবাহিনীর উদ্দেশে পাথর ছোড়ায় অভিযুক্ত কাশ্মীরি যুবকদের মার্জনা করে দিতে পারে কেন্দ্র। প্রথম বার এই অপরাধে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারও করে নেওয়া হতে পারে। এমনই জানিয়েছেন কেন্দ্রের কয়েক জন আধিকারিক।

এ মাসের শেষে দ্বিতীয় বার কাশ্মীরে যাওয়ার কথা দীনেশ্বর শর্মার। সেই সফরের আগেই উপত্যকার মন জয় করার জন্য এই ঘোষণা করা হতে পারে। ইতিমধ্যে রাজ্য এবং কেন্দ্রীয় আধিকারিকদের মধ্যে এ বিষয়ে কয়েক দফা আলোচনাও হয়ে গিয়েছে।

গৃহমন্ত্রকের এক আধিকারিকের কথায়, “প্রচুর কিশোর-যুবক এই অপরাধে অভিযুক্ত। যারা প্রথম বার এই অপরাধ করেছে, তাদের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার করে নেব আমরা।”

এই ব্যাপারে দীনেশ্বরবাবুর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিশেষ কিছু বলতে চাননি, তবে উপত্যকার যুব সম্প্রদায়ের কথা ভেবেই যে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, সেটা বলেন তিনি। তিনি বলেন, “আমি শুধু যুব সম্প্রদায়ের কথা ভাবছি কারণ তারাই আমাদের অগ্রাধিকার। তারাই সব থেকে বেশি রেগে রয়েছে, তাই তাদের মনোভাবে বদল আনার জন্য আমাদের অনেক কিছু করতে হবে।” কেন্দ্রের আশা প্রথম বার অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহার করে নেওয়া হলে কেন্দ্রের ওপরে রাজ্যবাসীর আস্থা বাড়বে।

কিছু দিন আগেই নিজেদের মনোভাবে কিছুটা পরিবর্তনের ইঙ্গিত দিয়েছে নিরাপত্তাবাহিনী। জানিয়ে দিয়েছে জঙ্গি শিবিরে যোগ দিয়েও যদি কেউ পুলিসের কাছে আত্মসমর্পণ করে তা হলে তার বিরুদ্ধে মামলা করা হবে না। উদাহরণস্বরূপ কিছু দিন আগে মায়ের কাতর আবেদনে লস্কর শিবির থেকে ফিরে আসা উদীয়মান ফুটবলার মজিদের বিরুদ্ধেও কোনো ধারা আনেনি পুলিস। তার পর, এই মার্জনার পদক্ষেপ গ্রহণ করা হলে কাশ্মীরের মানুষের অনেকটা মন জয় করা যাবে বলে আশাবাদী কেন্দ্র।

উল্লেখ্য, গত বছর জুলাইয়ে হিজবুল জঙ্গি বুরহান ওয়ানির মৃত্যুর পর থেকেই অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে কাশ্মীর। নিরাপত্তাবাহিনীকে লক্ষ করে পাথর ছোড়া শুরু করে যুবসম্প্রদায়। নিরাপত্তাবাহিনীর পালটা গুলিতে মৃত্যু হয় একশোরও বেশি যুবকের। ছররা গুলি লেগে দৃষ্টিও হারান বহু মানুষ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here