খবর অনলাইন ডেস্ক: প্রথম বার ক্ষমতায় আসার সময় বছরে দু’কোটি চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)। প্রথম দফায় সেই সংখ্যার ধারেকাছে পৌঁছাতে না পারায় তুমুল সমালোচনায় সরব হন বিরোধীরা। দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতায় এসেও সেই লক্ষ্য কতটা পূরণ হয়েছে?

কেন্দ্রীয় সরকারের হিসেব অনুযায়ী, ২০১৯ থেকে ২০২১ সালের ১ মার্চ পর্যন্ত বিভিন্ন মন্ত্রকে ১.৪ লক্ষের বেশি মানুষকে চাকরি দিচ্ছে কেন্দ্র। ইকনোমিক্স টাইসম-এর রিপোর্ট অনুযায়ী কোন মন্ত্রকে কত জনকে এই মেয়াদে চাকরি দেওয়া হচ্ছে, দেখে নেওয়া যাক এক নজরে।

কোন মন্ত্রকে কত

কৃষি, সহযোগিতা ও কৃষক কল্যাণ বিভাগ- ২,২০৭

অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রক- ১,০৫৮

প্রতিরক্ষা মন্ত্রক- ১২,৫৩৭

সংস্কৃতি মন্ত্রক- ৩,৬৩৮

ভূ-বিজ্ঞান মন্ত্রক- ২,৮৫৯

বিদেশ মন্ত্রক-২,২০৪

পরিবেশ, বন এবং জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রক- ২,২৬৩

বাণিজ্য মন্ত্রক-২,১৩৯

ইলেকট্রনিক্স মন্ত্রক-১,৪৫২

স্বাস্থ্য এবং পরিবার কল্যাণ মন্ত্রক-৪,০৭২

খনি মন্ত্রক-৫,৩০৫

শ্রম এবং কর্মসংস্থান মন্ত্রক-২,৪১৯

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রক-১,৮৪৮

জলসম্পদ, নদী উন্নয়ন এবং গঙ্গা পুনরুজ্জীবন বিভাগ-১,৪৫৬

পশুপালন ও দুগ্ধশিল্প বিভাগ- ৯৯৫

মৎস্য বিভাগ- ৬৫১

কর্মীবর্গ, গণ অভিযোগ এবং পেনশন মন্ত্রক-২,৬৮৪

বিরোধীদের সমালোচনার জবাবে

প্রতিশ্রুতি মতো চাকরি দিতে না পারার জন্য বরাবরই মোদীকে নিশানা করে থাকেন বিরোধীরা। সেই সমালোচনার জবাবও মাঝেমধ্যে দিয়ে থাকেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালে লোকসভা ভোটের আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী পাঁচ বছরে চাকরি সৃষ্টির ক্ষেত্রে সব কিছু করা সম্ভব হয়নি বলে স্বীকারও করে নেন। বলেন, “চাকরি সৃষ্টির ক্ষেত্রে সব পদক্ষেপ করা হয়েছে, এমন দাবি করব না। আরও অনেক কিছু করার রয়েছে। তবে এটা বলতে পারি, চাকরি সৃষ্টির প্রশ্নে বিশ্বের সামনে উদাহরণ হয়ে উঠবে ভারত”।

আরও পড়তে পারেন: বাজেট ২০২১: এক ঝলকে

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন