সংসদে সংবাদ মাধ্যমের উপর কেন্দ্রের ‘দমন’ নীতির প্রতিবাদে অধীর

0
Adhir Ranjan Chowdhury
ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা অধীররঞ্জন চৌধুরী বুধবার কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সংবাদ মাধ্যমের উপর ‘দমন’ নীতির তীব্র প্রতিবাদ জানালেন। তিনি অভিযোগ করেন, সংবাদ মাধ্যমের উপর বিশেষ কৌশলের প্রয়োগ করা হয়েছে ভোটে জিততে।

অধিবেশনের জিরো আওয়ার-এ অধীরবাবু বক্তব্য রাখতে গিয়ে অভিযোগ করেন, ভোটের আগে কেন্দ্র সরকার অগণতান্ত্রিক এবং বেআইনি ভাবে সংবাদ মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিয়েছে। বিজেপির ভোটে জেতার কৌশল হিসাবেই এ ধরনের কাজ করা হয়েছে।

অধীরবাবুর এহেন বক্তব্যের পরই ট্রেজারি বেঞ্চ থেকে হইহট্টগোল শুরু করে দেওয়া হয়। লোকসভা অধ্যক্ষ ওম বিড়লা এর পরই পরবর্তী বক্তাকে বলার জন্য অনুরোধ করেন। কিন্তু তুমুল হট্টগোলের মধ্যে কংগ্রেস অধীরবাবুকে বক্তব্য শেষ করার অনুমতির জন্য দাবি তুলতে শুরু করে।

তবে পরিস্থিতি অনুযায়ী, এর পর বলতে ওঠেন কংগ্রেসের মনীশ তিওয়ারি। তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের উদ্দেশে প্রশ্ন করেন, সরকার কি ইরান থেকে অপরিশোধিত জ্বালানি তেল কিনবে কি না, তা স্পষ্ট করে জানানো হোক।

নিজের বক্তব্য পেশ করতে গিয়ে অধীরবাবুর বক্তব্যের কড়া প্রতিক্রিয়া জানান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি বলেন, “যাঁরা হেরে গিয়েছেন তাঁদের আত্মসম্মানে আঘাত লেগেছে। তাঁরা দেশের মানুষকে অভিনন্দন জানান না। আত্মসমীক্ষা না করেই কংগ্রেস ইভিএমকে দোষারোপ করছে। ইভিএম চালু হওয়ার পর ১১৩টি বিধানসভা নির্বাচন হয়েছে। সব ভোটেই বিভিন্ন রাজনৈতিক দল জিতে ক্ষমতায় এসেছে। কংগ্রসে পরাজয় মেনে নিতে পারছে না। এটাই গণতন্দ্রের পক্ষে স্বাস্থ্যকর লক্ষণ নয়। দেশ-গণতন্ত্র হেরে গিয়েছে বলা হচ্ছে। ওয়ানাড়ে, বারবরেলিতে কি দেশ বা গণতন্ত্র হেরে গিয়েছে”?

তাঁর দাবি, “বলা হচ্ছে সংবাদ মাধ্যমকে দমন করে জেতা হয়েছে। কর্নাটক, তামিলনাড়ুতেও কি সংবাদ মাধ্যমকে কিনে জেতা হয়েছে। বলা হচ্ছে ২ হাজার টাকার বিনিময়ে কৃষকদের ভোট কেনা হয়েছে। এ ভাবে দেশের ১৫ কোটি কৃষককে অপমান করা হচ্ছে”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here