nirmala sitharaman
কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। ফাইল ছবি

ওয়েবডেস্ক: পঞ্চম তথা শেষ দফার কোভিড ত্রাণ প্যাকেজ (Covid relief package) ব্যাখ্যায় কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন (Nirmala Sitharaman)। গত বুধবার থেকে শুরু করে রবিবার কেন্দ্রের ঘোষিত ২০ লক্ষ কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজের বিস্তারিত বিবরণ পেশ করছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী। অন্য দিন নিয়মিত ভাবে বিকেল ৪টেয় তিনি সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হলেও আজ সকাল ১১টায় শুরু হয় প্যাকেজ ঘোষণা। এক নজরে দেখে নিন এ দিন কী ঘোষণা করলেন সীতারমন-

*করোনা মোকাবিলায় কেন্দ্রের সাত দফা পদক্ষেপ: মনরেগা প্রকল্প, স্বাস্থ্যপরিষেবা এবং শিক্ষা, কোভিড আবহে ব্যবসা, কোম্পানি অ্যাক্টের সংস্কার, ব্যবসা নীতির সরলীকরণ, রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা এবং নীতি, রাজ্য সরকার এবং সম্পদ।

Loading videos...

*মনরেগা (MNREGA) অথবা একশো দিনের কাজে অতিরিক্ত বরাদ্দ ৪০ হাজার কোটি টাকা। এর ফলে ৩০০ কোটি নতুন কর্মদিবস তৈরি হবে। নিজের রাজ্যে ফিরে পরিযায়ী শ্রমিকরাও হাতে কাজ পাবেন। এই খাতে বাজেট বরাদ্দ ছিল ৬১ হাজার কোটি টাকা।

*স্বাস্থ্য পরিষেবা পরিকাঠামোকে ঢেলে সাজানো হচ্ছে। সংক্রমণ রোগের পরীক্ষার জন্য ল্যাব তৈরি হচ্ছে। দেশের সব জেলায় ব্লকস্তরে এই ল্যাব তৈরি হবে। শিক্ষাক্ষেত্রে অনলাইন পরিষেবা শুরু হয়েছে। ডিটিএইচ পরিষেবাকেও অনলাইন শিক্ষায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। একটি সর্বজনীন প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমেই সারা দেশে শিক্ষাব্যবস্থা চালু হবে। রেডিয়োর মাধ্যমেও ক্লাস হবে। শীর্ষ ১০০টি বিশ্ববিদ্যালয় আগামী ৩০ মে থেকে স্বয়ংক্রিয় ভাবে অনলাইন কোর্স চালুর অনুমোদন পাবে।

*ক্ষুদ্র এবং মাঝারি শিল্পকে দেউলিয়া ঘোষণার সীমা বৃদ্ধি। এক বছর পর্যন্ত কোনো নতুন দেউলিয়া মামলা শুরু করা হবে না। এ ক্ষেত্রে দেউলিয়া ঘোষণার জন্য ন্যূনতম সীমা এক লক্ষ টাকা থেকে বাড়িয়ে এক কোটি টাকা।

*কোম্পানি আইনে অনেক অপরাধকে ফৌজদারি অপরাধ থেকে বাইরে আনা হচ্ছে। ছোটোখাট ভুলত্রুটিগুলি এখন থেকে ফৌজদারি অপরাধ হিসাবে গণ্য হবে না। সাতটি যৌগিক অপরাধের মোকাবিলা করা হবে পাঁচটি বিকল্প পথে।

*নতুন পাবলিক সেক্টর এন্টারপ্রাইজেস পলিসি নিয়ে আসা হয়েছে। সরকারি ক্ষেত্রে বেসরকারিকরণে সায় দেওয়া হবে। এ ব্যাপারে স্ট্র্যাটেজিক সেক্টর-এর তালিকা তৈরি করা হবে। ওই তালিকা অনুযায়ী বেসরকারিকরণ এবং সংযুক্তিরকরণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

*রাজ্যগুলি টানা তিন সপ্তাহের জন্য আরবিআই থেকে ওভারড্রাফট করতে পারবে। ৮৬ শতাংশ পর্যন্ত ঋণ নেওয়ার ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। জিডিপির নিরিখে ৩ শতাংশের পরিবর্তে ৫ শতাংশ পর্যন্ত ঋণ নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে। ফলে রাজ্যগুলি বাজার থেকে৪.২৮ লক্ষ কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণ নিতে পারবে। ইতিমধ্যেই রাজ্যগুলিকে ১১ হাজার কোটি টাকার বেশি দিয়েছে কেন্দ্র। স্বাস্থ্যমন্ত্রক দিয়েছে ৪ হাজার কোটির বেশি।

*আত্মনির্ভর ভারত গড়ার লক্ষে জমি, শ্রম, আর্থিক সহায়তা এবং আইন সংক্রান্ত একাধিক সংস্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মহামারি থেকে আমরা এই শিক্ষা নিয়েছি। গরিবদের আর্থিক সাহায্য করা হচ্ছে। পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে খাদ্যশস্য। প্রধানমন্ত্রী গরিবকল্যাণ যোজনায় এই সহযোগিতা করা হচ্ছে।

*জনধন যোজনা প্রকল্পে ২০ কোটি মানুষকে সাহায্য। সরাসরি তাঁদের অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠানো হচ্ছে। এখনও পর্যন্ত ১০ হাজার ২২৫ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে।

*কৃষকদের অ্যাকাউন্টেও সরাসরি টাকা পাঠাচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। ৮.১৯ কোটি কৃষকের অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠানো হয়েছে। প্রত্যেক অ্যাকাউন্টে দু’হাজার টাকা।

*৬ কোটি ৮১ লক্ষ উজ্জ্বলা যোজনার গ্রাহককে বিনামূল্যে রান্নার গ্যাস পৌঁছে দেওয়া হয়েছ

*পরিযায়ী শ্রমিকদের নিজের রাজ্যে ফেরাতে ট্রেন ভাড়ার ৮৫ শতাংশ ব্যয় বহন করছে কেন্দ্র। তাঁদের জন্য খাদ্যের ব্যবস্থাও করা হচ্ছে। আট কোটি পরিযায়ী শ্রমিকের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.