gsat satellite

ওয়েবডেস্ক: যোগাযোগ স্থাপন না করা গেলে ভারতের উপগ্রহ জিএসএটি ৬এ মহাকাশের বর্জ্যে পরিণত হতে পারে, এমনই দাবি করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

দেশের  টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থায় গতি আনতে গত বৃহস্পতিবার পৃথিবীর কক্ষপথে সম্পর্ণ ভারতীয় প্রযুক্তিতে তৈরি একটি কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠিয়েছিল ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো। শনিবার তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। যদিও যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার কথা রবিবার জানিয়েছে ইসরো।

এই প্রসঙ্গেই নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিজ্ঞানী এএনআইকে জানিয়েছেন, যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার পরে ৪৮ ঘণ্টা কেটে যাওয়ায় আবার যোগাযোগ স্থাপন করা হয়তো যাবে না। তিনি বলেন, “জিএসএটি-৬এ’-এর সঙ্গে যদি পুনরায় না যোগাযোগ করা যায় তা হলে মহাকাশের বর্জ্য হওয়া ছাড়া কিছুই ভাগ্যে নেই তার। তবে পুরোপুরি ভর্তি বর্জ্য হবে এটি। কারণ দশ বছরের মতো জ্বালানি রয়েছে ওই উপগ্রহে।”

পাওয়ার সিস্টেম খারাপ হওয়ার জন্যই এমনটা ঘটেছে বলেই প্রাথমিক ভাবে মনে করছে ইসরো। ওই বিশেষজ্ঞ বলেন, “সৌর প্যানেলের মাধ্যমে উপগ্রহে বিদ্যুৎ দেওয়া হয়। সেই সঙ্গে ব্যাটারিকেও চার্জ দেয় ওই সৌর প্যানেলগুলি। উপগ্রহ রওনা হওয়ার আগে ব্যাটেরিগুলিতে পুরো চার্জ ছিল। যদি ধরে নিই যে উপগ্রহের মধ্যে সৌর প্যানেল খারাপ হয়ে গিয়ে থাকে তা হলেও তো ব্যাটারিগুলো তাদের কাজ শুরু করতে পারত। কিন্তু এখানে সেটাও হয়নি। পুরো পাওয়ার সিস্টেমটাই খারাপ হয়েছে।”

আরও পড়ুন: রবিবারের পড়া: মহাকাশে চাক্কা জ্যাম

অনেকের মতে শর্ট সার্কিটের ফলে খারাপ হয়ে থাকতে পারে এই পাওয়ার সিস্টেম। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেলে প্রথম ১৮ থেকে ১৯ ঘণ্টা পৃথিবীর চারপাশে চক্কর কাটবে সে, তার পর ক্রমশ পূর্বে সরতে থাকবে, এমনও ধারণা করছেন বিজ্ঞানীরা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন